পরাজিত BJP প্রার্থীর বাড়িতে হামলা, দেওয়া হল প্রাণনাশের হুমকি, অভিযুক্ত তৃণমূল

বাংলা হান্ট ডেস্ক : মিটে গেছে পঞ্চায়েত নির্বাচন (Panchayat Election 2023)। প্রকাশিত হয়ে গেছে ভোটের ফলাফলও। তারপরও হিংসা থামার নামই নেই। এখনও রাজ্যের নানা প্রান্ত থেকে আসছে লাগাতার হিংসার খবর। অভিযোগ, কোথাও দলবদলের জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে বিরোধী শিবিরের জয়ী প্রার্থীদের, কোথাও আবার তৃণমূলের (Trinamool Congress) বিজয় মিছিলে মারধর করা হয় বিরোধীদের।

অবশ্য বিরোধীদের উপর যাতে কোনও হিংসা না হয় তা দেখতে আগেই বলেছিলেন পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক তথা পশ্চিম বর্ধমান জেলা তৃণমূলের সভাপতি নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী। ফল প্রকাশের পরেই দিয়েছিলেন বার্তা। দলের কোনও কর্মী বিরোধীদের উপর হামলা করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারিও দেন তিনি।

কিন্তু, তাঁর বার্তার পরেও পাণ্ডবেশ্বরের হরিপুর পঞ্চায়েতের বাজারে গ্রামে বিজেপি প্রার্থীর বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠে আসে। অভিযোগের তির তৃণমূলের বিরুদ্ধে। হরিপুর পঞ্চায়েতের ৩৬ নম্বর বুথে বিজেপির প্রার্থী হয়েছিলেন কাজলি বাদ্যকর। কিন্তু, হেরে গিয়েছেন তৃণমূলের কাছে।

tmc vote

এরপরই তিনি অভিযোগ করেন, ফলপ্রকাশের পর থেকেই তাঁদের বাড়িতে শুরু হয়েছে অত্যাচার। ব্যাপক ভাঙচুর চলেছে তাঁর বাড়িতে। মারধর করা হয়েছে তাঁর শ্বশুরকেও। প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দেওয়া হয়েছে। তাতেই তীব্র আতঙ্কে রয়েছে কাজলি দেবীর গোটা পরিবার।

ঘটনায় জেলা তৃণমূলের সভাপতি নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর দিকে আঙুল তুলেছেন বিজেপির জেলা সভাপতি দিলীপ দে। তাঁর অভিযোগ, পান্ডবেশ্বরের বিধায়কের নেতৃত্বেই এলাকায় ব্যাপক সন্ত্রাস চালাচ্ছে তৃণমূল। যদিও অভিযোগ উড়িয়েছেন নরেন্দ্রনাথ। তাঁর দাবি, তৃণমূল কর্মীরা সংযত রয়েছে। যা ঘটেছে তা আদপে দুই প্রতিবেশীর ঝামেলা। সেটাকেই রাজনীতির রং দেওয়ার চেষ্টা করছে বিজেপি।

ভোটের ফল ঘোষণার পরই বীরভূমের মল্লারপুরে নিখোঁজ হয়ে গেলেন জয়ী বিজেপি প্রার্থীর স্বামী। ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের দক্ষিণগ্রাম পঞ্চায়েতের কুসমি গ্রামে জয়ী হন বিজেপি প্রার্থী সাধনা বাগদী। পরিবারের দাবি, এরপর সন্ধেয় বাড়ি থেকে বেরিয়ে আর ফেরেননি বিজেপি প্রার্থীর স্বামী। নিখোঁজ-রহস্যের নেপথ্যে তৃণমূলের হাত রয়েছে বলে মনে করছে গেরুয়া শিবির। মল্লারপুর থানায় নিখোঁজ ডায়েরি হয়েছে। এ বিষয়ে তৃণমূলের প্রতিক্রিয়া এখনও মেলেনি।