মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে গিয়ে আত্মহত্যা করবেন…! সুকান্তর মন্তব্যে তোলপাড় রাজ্য, কী হতে চলেছে?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বিজেপির রাজ্য সভাপতি থেকে কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumdar)। কয়েকদিন আগেই এই পদে আসীন হয়েছেন তিনি। এবার তাঁর মুখেই শোনা গেল চরম হুঁশিয়ারি। রাজ্যপালের সঙ্গে ভোট পরবর্তী হিংসায় (Post Poll Violence) আক্রান্তদের দেখা না করতে দেওয়া প্রসঙ্গে সরব হলেন তিনি।

সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন সুকান্ত। তখনই BJP নেতা বলেন, ‘মাননীয় রাজ্যপাল একেবারে সঠিক প্রশ্ন করেছেন। বাংলায় রাজ্যপালের সঙ্গে আক্রান্তদের দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না। রাজভবন থেকে বেরিয়ে রাজ্যপালকে তাঁদের সঙ্গে দেখা করতে যেতে হচ্ছে। লজ্জায় গণতন্ত্রের মাথা হেঁট হয়ে গিয়েছে। গণতন্ত্রে সংবিধানকে সংরক্ষণের দায়িত্ব রাজ্যপালের। আক্রান্তরা যদি সেখানেও না পৌঁছতে পারেন, তাহলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কী চান?’

   

এরপরেই বালুরঘাটের BJP সাংসদ বলেন, ‘যারা BJP করেন তাঁরা জলে ঢুবে প্রয়াত হোক? আত্মহননের পথ বেছে নিক? তেমনটা যদি হয় একবার মুখ্যমন্ত্রী খোলাখুলি বলে দিন। ওনার বাড়ির সামনে গিয়ে BJP কর্মীরা এক এক করে আত্মহনন করবে’।

আরও পড়ুনঃ রাজ্যের হাতে ফিরবে মেডিক্যাল জয়েন্ট পরীক্ষা? NEET বিতর্কে তোলপাড় দেশ, সুর চড়ালেন ব্রাত্য 

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে ভোট পরবর্তী হিংসায় আক্রান্তরা রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন। রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করার আগাম অনুমতি ছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও ‘পুলিশি বাধা’র সম্মুখীন হতে হয় তাঁদের। এরপর খালি হাতেই ফিরে আসতে হয় প্রত্যেককে। এই নিয়ে শুক্রবারই কলকাতা হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন শুভেন্দু।

Sukanta Majumdar

শুনানির সময় বিচারপতি অমৃতা সিনহা পুলিশকে ভর্ৎসনা করার পাশাপাশি শুভেন্দু এবং আক্রান্তদের রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে দিতে হবে বলে নির্দেশও দেন। এর মাঝেই গতকাল দুপুরে শহর কলকাতা মাহেশ্বরী ভবনে গিয়ে আক্রান্তদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন রাজ্যপাল। এরপর আদালতের নির্দেশ মতো ফের একবার সন্ধেবেলা রাজভবনে দেখা করেন তিনি। এরপর একটি বিবৃতি প্রকাশ করে জানান, যতক্ষণ অবধি নির্বাচন পরবর্তী হিংসায় আক্রান্ত প্রত্যেক মানুষ তাঁর সঙ্গে দেখা করতে পারছেন না, ততক্ষণ অবধি রাজভবনে পুলিশমন্ত্রীর সঙ্গে তিনি সাক্ষাৎ করবেন না।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর