শাহকে চারবার ফোন করে আবেদন মমতার! সিঙ্গুরে দাঁড়িয়ে শুভেন্দু যা বললেন, শুনে হতবাক সকলে

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটের (Panchayat Vote) পূর্বে সভা-জনসভায় মেতে উঠেছে সমস্ত রাজনৈতিক দল। শাসক থেকে বিরোধী সকলেরই প্রস্তুতি তুঙ্গে। এই আবহেই মঙ্গলবার সিঙ্গুরের (Singur) বড়া হাওয়াখানা এলাকায় এক জনসভা করেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। সেই সভা থেকেই টাটা প্রসঙ্গ তুলে মুখ্যমন্ত্রীকে কার্যত তুলোধোনা করলেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক। তার কথায়, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিঙ্গুর আন্দোলনের উদ্দেশ্য কৃষি জমি ফিরেয়ে দেওয়া ছিল না, ছিল মুখ্যমন্ত্রী হওয়া। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবথেকে বড় সর্বনাশ করে গিয়েছেন, টাটা কারখানা ধ্বংস করে।”

   

প্রসঙ্গত, সিঙ্গুর থেকে টাটা দের চলে যাওয়ার জন্য এদিন সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Mamata Banerjee) কাঠগড়ায় তুললেন শুভেন্দু অধিকারী। বিরোধী দলনেতার দাবিযে সিঙুরের সব থেকে বড় সর্বনাশ করেছেন মমতা। গত ১২ বছরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যে কোনও শিল্প আনতে পারেনি বলেও এদিন প্রকাশ্য সভা থেকে তোপ দাগেন শুভেন্দু।

ঠিক কী বললেন শুভেন্দু অধিকারী? এদিন তিনি বলেন, “১৬দিন এখানে বসে ড্রামা করে টাটাকে তাড়িয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আপনারা শিল্প চান না, মমতার ডিনামাইট চান। বিজেপি যদি রাজ্যে ক্ষমতায় আসে তাহলে টাটা কে ফুলের মালা পড়িয়ে রাজ্যে আনা হবে।” এরপর জমি আন্দোলন নিয়ে তিনি বলেন, “আমরা সিপিএম-এর জমি নীতির বিরোধী ছিলাম। কারণ ১৮৯৪ সালের ব্রিটিশদের জমি আইন বস্তা পচা ছিল। তবে আমরা শিল্পের পক্ষে।”

রাজ্যে একাধিক শিল্প বন্ধ হয়ে যাওয়ার জন্যেও মমতা ও তার তৃণমূল সরকারের দিকে আঙুল তোলেন শুভেন্দু। সাম্প্রতিক নিয়োগ দুর্নীতি নিয়েও মন্তব্য করতে দেখা যায় তাকে। জোর গলায় বলেন, হুগলির আরও একাধিক নেতা যুক্ত আছে কেলেঙ্কারির সাথে। এদিন তৃণমূলের জাতীয় দলের তকমা হারানো নিয়েও খোঁচা মারেন শুভেন্দু। তার দাবি, ‘সর্বভারতীয় তকমা চলে যাওয়ার পর অমিত শাকে চারবার ফোন করেছেন উনি, আমার ২০২৪ অবধি রাষ্ট্রীয় তকমাটা রেখে দিলে হয় না, অমিত শাহ বলেছেন না হয় না। আমাদের নির্বাচন কমিশন আপনাদের মত নয় তো। আপনি তো ভোট পাননি থাকবেন কি করে।’

suvendu mamata

প্রসঙ্গত, যে সিঙ্গুর আন্দোলন রাজ্য রাজনীতির মোড় ঘুরে দিয়েছে, যে আন্দোলনের সময় শুভেন্দু, মমতা দুজনে ছিলেন সহযোদ্ধা। সেই সময় শুভেন্দু তৎকালীন বিরোধী দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন। বর্তমানে তিনি ভারতীয় জনতা পার্টিতে। মমতার বিরোধী। সর্বদা তার নিশানায় মুখ্যমন্ত্রী। এদিন শুভেন্দু বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগত আক্রমণ ওনাকে (মমতা) করি না। কিন্তু আপনাদের কাছে প্রশ্ন করছি। ২০১১ র পর উনি বদলে গেছেন কিনা, লাইফ স্টাইল চেঞ্জ হয়েছে কিনা? এখন দুটো চাটার ফ্লাইট একটা নিজের একটা ভাইপোর। ডোমজুড় থেকে সভা করতে গেলেন হেলিকপ্টারে।’