সন্দেশখালি স্টিং কাণ্ডে নয়া মোড়! এবার বিরাট নির্দেশ হাই কোর্টের, তোলপাড় রাজ্য

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ লোকসভা ভোটের আবহেও সংবাদের শিরোনামে রয়েছে সন্দেশখালি। ‘শাহজাহান গড়’ নিয়ে চর্চা যেন থামারই নাম নিচ্ছে। দিন কয়েক আবার সন্দেশখালির একটি ‘স্টিং ভিডিও’ (Sandeshkhali Sting Operation) ভাইরাল হয়েছে। যাতে সন্দেশখালির কাণ্ডের সত্যতা কার্যত প্রশ্নের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে। এবার এই ‘স্টিং ভিডিও’ কাণ্ডেই বিরাট নির্দেশ দিল কলকাতা হাই কোর্ট (Calcutta High Court)।

সন্দেশখালি নিয়ে ভুয়ো ভিডিও প্রচার করা হচ্ছে, এই অভিযোগ নিয়ে গত শুক্রবার আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বিজেপি (BJP) নেতা গঙ্গাধর কয়াল এবং গদাধর কয়াল। উল্লেখ্য, সন্দেশখালি নিয়ে ভাইরাল হওয়া প্রথম ‘স্টিং ভিডিও’য় এই গঙ্গাধরকেই দেখা যাচ্ছে বলে দাবি। যদিও বিজেপি নেতার অভিযোগ, তাঁর ছবি ব্যবহার করে ওই ভুয়ো ভিডিও বানিয়ে তা সমাজমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। যে কারণে ফের নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে সন্দেশখালি (Sandeshkhali)।

   

এই অভিযোগ এনে হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন গঙ্গাধররা (Gangadhar Koyal)। একইসঙ্গে আদালতের কাছে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তার আবেদনও জানিয়েছেন। পাশাপাশি জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় এজেন্সি সিবিআইয়ের কাছেও অভিযোগ জানিয়েছেন তাঁরা। সোমবার এই মামলায় মৌখিকভাবে কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশ, স্টিং ভিডিও নিয়ে যে মামলা দায়ের হয়েছে তাতে এখনই বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে না।

আরও পড়ুনঃ ঘিরে ধরলেন দলীয় কর্মীরাই! প্রচারে ‘গো ব্যাক’ স্লোগান শুনে মেজাজ হারালেন তৃণমূলের প্রসূন, তারপর…

মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টে এই নিয়ে শুনানি রয়েছে। সেই শুনানি অবধি সন্দেশখালির বিজেপি নেতা গঙ্গাধর সহ মামলাকারীদের বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে না বলে জানিয়েছে আদালত। এদিন মৌখিকভাবে হাই কোর্টের বিচারপতি জয় সেনগুপ্ত এই নির্দেশ দিয়েছেন।

অন্যদিকে ইতিমধ্যেই এক মহিলা শীর্ষ আদালতের নজরদারিতে তদন্তের আর্জি জান্যেছেন। সোমবার হাই কোর্টের বিচারপতি জয় সেনগুপ্তের এজলাসে শুনানি চলাকালীন রাজ্য সরকারের তরফ থেকে বলা হয়, মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি বিআই গাভাইয়ের বেঞ্চে এই মামলা নিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হবে।

Calcutta High Court

একথা শোনার পর জাস্টিস সেনগুপ্ত নির্দেশ দেন, এখনই গঙ্গাধর সহ বাকি দু’জনের বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে না। আদালতের এই নির্দেশের ফলে গঙ্গাধররা সাময়িক স্বস্তি পেলেন। তবে আগামীকাল শীর্ষ আদালতে শুনানি হওয়ার পরেই এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে বলে খবর।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর