এরপরেই বিচ্ছিন্ন হবে বিক্রম! চাঁদ থেকে আর মাত্র ১০০ কিমি দূরে চন্দ্রযান-৩

বাংলাহান্ট ডেস্ক : সোমবার চন্দ্রপৃষ্ঠের আরো কাছাকাছি পৌঁছে গেল চন্দ্রযান ৩। চন্দ্রযান ৩ চন্দ্র কক্ষের আরো একধাপ নিচে নামল ১৪ ই আগস্ট। ইসরোর (Indian Space Research Organisation) পক্ষ থেকে টুইট করে জানান হল এই কথা। ভারতের মহাকাশ সংস্থা ইসরো চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে পাঠিয়েছে চন্দ্রযান ৩। ভারতের এই চন্দ্রযানটির চন্দ্রকক্ষে নামার কথা আগামী ২৩শে আগস্ট।

টুইটারে ইসরো লিখেছে, শুরু হয়ে গিয়েছে কক্ষপথ পরিচলন পর্ব। চাঁদের বৃত্তাকার কক্ষপথের ১৫০ কিলোমিটার X ১৭৭ কিলোমিটার অবস্থানে চন্দ্রযানকে পাঠানো হয়েছে সুনির্দিষ্ট কৌশলের মাধ্যমে। ১৬ অগাস্ট সকাল সাড়ে আটটার সময় সম্পন্ন হবে পরবর্তী অপারেশনটি। চন্দ্রযান-৩-এর (Chandrayaan 3) ল্যান্ডার ‘বিক্রম’ ও রোভার ‘প্রজ্ঞান ল্যান্ড করবে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে।

   

মহাকাশযানটি অবতরণ করতে পারে ৭০ ডিগ্রি দ্রাঘিমায়। এই এলাকাটি প্রায় ৩০০ কিলোমিটার দূরে চাঁদের দক্ষিণ মেরু থেকে। এখনো পর্যন্ত চাঁদে পা দেওয়ার তিনটি দেশ আমেরিকা, রাশিয়া, চীন কেউই ছুঁতে পারেনি চাঁদের দক্ষিণ মেরুকে। পৃথিবীর সব মহাকাশ সংস্থাগুলি এখনো পর্যন্ত চেষ্টা করেছে ৩৮টি সফট ল্যান্ডিংয়ের। কিন্তু সেখানে সাফল্যের হার ৫২%।

চাঁদের কক্ষপথে যখন চন্দ্রযান ৩ প্রবেশ করেছে তখন থেকে কমানো হয়েছে এর গতিবেগ। চাঁদের থেকে মহাকাশযানের দূরত্ব যখন ১০০ কিলোমিটার হবে তখন বন্ধ হয়ে যাবে প্রোপলশন মডিউলের ইঞ্জিন। ল্যান্ডার ‘বিক্রম’-কে উল্লম্বভাবে চাঁদের মাটিতে নামানোটাই এখন সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ বিজ্ঞানীদের কাছে।

এর আগে ইসরোর পক্ষ থেকে চন্দ্রযান ২ পাঠানো হয় ২০১৯ সালে। কিন্তু সেই সময় মহাকাশযানটিকে চাঁদের মাটিতে নামাতে ব্যর্থ হয় ইসরো। কিন্তু এখন একান্তই যদি নির্দিষ্ট সময়ে মহাকাশযানটিকে চাঁদে ল্যান্ড করানো না যায় তাহলে বিজ্ঞানীরা ভেবে রেখেছেন যে সেটিকে সেপ্টেম্বরের প্রথম দিকে নামানো হবে।

Avatar
Soumita

আমি সৌমিতা। বিগত ৩ বছর ধরে কর্মরত ডিজিটাল সংবাদমাধ্যমে। রাজনীতি থেকে শুরু করে ভ্রমণ, ভাইরাল তথ্য থেকে শুরু করে বিনোদন, পাঠকের কাছে নির্ভুল খবর পৌঁছে দেওয়াই আমার একমাত্র লক্ষ্য।

সম্পর্কিত খবর