DA বৃদ্ধির পর এবার হবে বেতন বৃদ্ধি! রাজ্যের ৩ লাখ কর্মীকে নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত পশ্চিমবঙ্গ সরকারের

বাংলা হান্ট ডেস্ক : ২০২৪ সালে বাংলার মমতা (Mamata Banerjee) সরকার সরকারি কর্মচারীদের জন্য নতুনভাবে ডিএ (Dearness Allowance) বৃদ্ধির কথা ঘোষণা করেছেন। গত কিছুদিন ধরেই এই DA সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিক্ষোভ করেছিল মানুষ। তাই নতুন বছরে সরকারি কর্মচারীদের জন্য মমতা সরকার পেনশন উপভোগকারীদের জন্য DA বৃদ্ধি ঘোষণা করেছেন।

   

১ জানুয়ারি থেকে DA বৃদ্ধি করার কথা জানানো হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamta Banerjee) কয়েক লক্ষ সরকারি কর্মচারীদের জন্য ৪% বৃদ্ধির কথা জানিয়েছেন। তাছাড়া এবার থেকে সিভিক ভলেন্টিয়াররাও (Civic Volunteer) বাড়তি টাকা পাবেন। তাই এটা বলা বাহুল্য হবে যে এরম ঘোষণা শুনে সকলেই খুশি হয়েছেন।

সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্ন (Nabanna) বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ৫৩০০ টাকা করে বোনাস হিসেবে দেওয়া হবে সিভিক ভলেন্টিয়ারদের। এছাড়া কেন্দ্রীয় কর্মচারীদের DA 50 শতাংশ হওয়ার ফলে HRA সংশোধন করা হবে। এই HRA বৃদ্ধির জন্য শহরগুলিকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়েছে। তাছাড়া পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত পাটকল শ্রমিকদের (Mill Workers) মজুরি ফেব্রুয়ারি থেকে বৃদ্ধি করার কথাও বলা হয়েছে। যার ফলে পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ৩ লক্ষ শ্রমিক উপকৃত হবেন।

এই চুক্তি নিয়ে আগেও বৈঠক করা হয়েছিল। কিন্তু তখন ২০১৯ সালে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত করা হয়েছিল। চুক্তিটি হল দৈনিক কর্মচারীদের মজুরি বৃদ্ধি করা। তাই সব শেষে এ কথা বলা হয়েছে যে দৈনিক মজুরি প্রায় ৩০ শতাংশ বাড়িয়ে ৩৭০ টাকা থেকে ৪৮৫ টাকা করা হবে। এছাড়া পাটকলের শ্রমিকদের মোট মাসিক বেতন হবে ১৪,০৬৬ টাকা। যা আগের বেতনের তুলনায় প্রায় ৩,৫৬২ টাকা বেশি। তাছাড়া বিদ্যমান কর্মীদের মাসিক বেতন বাড়িয়ে দেওয়া হবে ১৭,২৭১ টাকা।

এরই মধ্যে বেড়েছে শ্রমিকদের অবসান ভাতাও। প্রায় ৫% থেকে ৭.৫ % বৃদ্ধি পেয়েছে। এই বিষয়ে রাঘবেন্দ্র গুপ্তা (Raghavendra Gupta) বলেছেন, ‘এই মজুরি বৃষ্টি করা আমাদের পাটশিল্প বিক্রির এক বোঝা বলা যেতে পারে। তাই আমাদের দেখতে হবে কিভাবে আমরা আমাদের খরচের প্যারামিটারগুলি উন্নত করতে পারি’। তিনি এ কথাও বলেন, দৈনিক মজুরি ৫% বৃদ্ধি করা হবে।

এছাড়া আইজেএমএ’র প্রাক্তন চেয়ারম্যান সঞ্জয় কাজারিয়া (Sanjay Kazaria) এই বিষয় নিয়ে বলেছেন, ‘এই চুক্তি প্রায় দীর্ঘ দিন ধরে ঝুলে ছিল। এটি সম্মত হওয়ার পর অনেক সমস্যায় সমাধান হয়েছে। এই চুক্তির ফলে অনেক দক্ষ শ্রমিকদের শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া প্রত্যেকটি বিভাগকে একটি নির্দিষ্ট ভাতাও দেওয়া হয়েছে’।