টাইমলাইনভারতরাজনীতি

হিন্দুত্ববাদী শিবসেনার পাশে ধর্মনিরপেক্ষ বামেরা! উদ্ধবের হয়ে ব্যাট ধরলেন সীতারাম ইয়েচুরি

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বিগত বেশ কয়েকদিন ধরে অস্বস্তি ক্রমশ বেড়েই চলেছে শিবসেনার। মহারাষ্ট্রে ক্ষমতা ধরে রাখাই যখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে, সেই মুহূর্তে ঘরে এবং বাইরে একাধিক প্রশ্নের মুখোমুখি হয়ে চলেছেন শিবসেনা প্রধান তথা মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। এমনকি, তাঁর বিরুদ্ধে করোনা বিধি ভাঙার জন্য এফআইআর পর্যন্ত দায়ের করা হয় আর এই সংকট মাঝে গতকালই শিবসেনার পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দিয়েছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন সিপিএম পার্টিকেও সেই একই পথে হাঁটতে দেখা গেল।

বর্তমানে মহারাষ্ট্রে শিবসেনা, কংগ্রেস এবং এনসিপির জোট সরকার থাকলেও দলের অন্দরে ভাঙনের চিত্র স্পষ্ট ধরা পড়েছে। শিবসেনার বিদ্রোহী নেতা একনাথ শিন্ডের সঙ্গে ইতিমধ্যে চল্লিশের উপর বিধায়ক যোগ দিয়েছেন। প্রথমে গুজরাট এবং বর্তমানে অসমে অবস্থান করার মাঝেই শিবসেনার জোট ছেড়ে তাদের। বিজেপিতে যোগদান করার সম্ভাবনা প্রবল হয়ে উঠেছে এক্ষেত্রে জল্পনা সত্যি হলে মহারাষ্ট্র সরকার ধরে রাখা মুশকিল হয়ে পড়বে আর এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে তৃণমূলের পর এবার শিবসেনার পাশে দাঁড়ালেন সীতারাম ইয়েচুরিরা।

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে মহারাষ্ট্র সরকারের অনেক বিধায়ককেই কেন্দ্রীয় এজেন্সির ভয় দেখিয়ে দলবদল করতে বাধ্য করে চলেছে বিজেপি, এহেন অভিযোগ উঠতে আরম্ভ করেছ। তবে শুধু মহারাষ্ট্রই নয়, বাংলার পাশাপাশি অন্যান্য একাধিক রাজ্যেও বিজেপির বিরুদ্ধে এহেন অভিযোগ তোলে আঞ্চলিক দলগুলি আর এবার সেই প্রসঙ্গে সরব হলো সিপিএম। তাদের দাবি, “শিবসেনার বিধায়কদের বর্তমানে এজেন্সির ভয় দেখিয়েই দল ছাড়তে বাধ্য করে চলেছে বিজেপি। এটা নিন্দনীয়।”

তবে এখানে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে যে, সাম্প্রদায়িক দল হিসেবে পরিচিত শিবসেনার পাশে কেন দাঁড়ালো ‘অসাম্প্রদায়িক’ সিপিএম? এক্ষেত্রে অবশ্য এই জল্পনা উড়িয়ে বামেদের দাবি, “মতাদর্শের দিক থেকে অন্যান্য একাধিক দলের সঙ্গে আমাদের পার্থক্য থাকতেই পারে। তবে বর্তমান সময়ে দেশে যেভাবে সংকটজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে এবং বিজেপি বিরোধীদের মুখ বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করে চলেছে, তার প্রতিবাদ আমরা করবই।”

Related Articles

Back to top button