রাজ্যে নয়া দুর্নীতির হদিস! ED-CBI বা IT নয় এবার আরেক কেন্দ্রীয় সংস্থার হানায় শোরগোল

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ গত কয়েক মাস ধরে রাজ্যের একাধিক জায়গায় জোর তল্লাশি চালিয়েছে কেন্দ্রীয় সংস্থা (Central Agencies)। ইডি-সিবিআই (ED-CBI)থেকে শুরু করে আয়কর দফতর। দফায় দফায় চলেছে তল্লাশি। এরই মধ্যে নয়া বছরে ফের জোড়া কেন্দ্রীয় সংস্থার হানা। মঙ্গলবার গোটা দিন তল্লাশি চলেছে এক ব্যবসায়ীর দোকান ও গুদামে।

   

সূত্র মারফত খবর, বাঁকুড়ার (Bakura) সারেঙ্গার এক দোকানে মঙ্গলবার দুপুরে প্রথমে জিএসটির (GST) খড়গপুর বিভাগের একটি দল হানা দেয়। সেই তল্লাশির পর ফের সেল ট্যাক্স বিভাগের কয়েকজন আধিকারিক পৌঁছে যায় সেই একই দোকানে। দিনভর চলে তল্লাশি। পড়ে সন্ধ্যায় সেখানে থেকে বেরিয়ে যান কেন্দ্রীয় সংস্থার আধিকারিকরা।

জানা গিয়েছে, তল্লাশি চলাকালীন দোকানের একাধিক নথিপত্র খতিয়ে দেখেন আধিকারিকরা। পড়ে সন্ধ্যায় সেল ট্যাক্সের আধিকারিকরা সেখান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার আগে ব্যবসায়ীর ওই দোকান ও সংলগ্ন গুদামটি সিল করে দেন। তবে ঠিক কি কারণে এই তল্লাশি সেই বিষয়ে অবশ্য কিছু জানাতে চাননি সেল ট্যাক্সের আধিকারিকরা।

আরও পড়ুন: নয়া বছরে ধামাকা! একলাফে ১৫% বাড়ানো হল পেনশনভোগীদের ডিআর, কারা পাবেন সুবিধা?

স্থানীয় সূত্রে খবর, ওই দোকানের মালিকের নাম সুশান্ত দত্ত। ওনার পাইকারি ব্যবসা রয়েছে। কেন তার দোকানে সেল ট্যাক্সের আধিকারিকরা হানা দিলেন সেই বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ সুশান্ত। তবে প্রতিবেশীদের একাংশের কথায়, জিএসটি ও সেল ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়ায় সেই কারচুপির কারণেই এই তল্লাশি।

gst raid

প্রসঙ্গত, গত বছর থেকেই দুর্নীতির তদন্তে রাজ্যে সক্রিয় একাধিক কেন্দ্রীয় এজেন্সি। দুর্নীতিতে নাম জড়িয়েছে একাধিক নেতা-মন্ত্রীর। কেলেঙ্কারির অভিযোগে জেলে গিয়েছে এমন ব্যক্তিদের তালিকা এখন বিরাট লম্বা। যা নিয়ে রীতিমতো উত্তপ্ত রাজ্য রাজনীতি। আর এই আবহেই এবার নয়া কেন্দ্রীয় এজেন্সির হানায় শোরগোল রাজ্যে।