হাইপ্রোফাইল হয়েও যন্ত্রনা! জেলে টিভি থাকলেও ম্যাচ দেখতে পারবেন না বালু-পার্থরা, শুরু ঝামেলা

   

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বর্তমানে বিশ্বকাপ (ICC World Cup 2023 Final) ফিভারে কাঁপছে গোটা দেশ। নেতা থেকে অভিনেতা, সাধারণ মানুষ সকলের নজর ওই একই দিকে। ইডেন গার্ডেন্সে এতদিন যে ক’টি বিশ্বকাপের ম্যাচ হয়েছে, সেই সব ম্যাচের টিকিট ফ্রি পেয়েছেন সকল বঙ্গ বিধায়কেরা (MLA’s)। তাদের মধ্যে কেউ কেউ পরিবার নিয়ে পৌঁছে গিয়েছেন ম্যাচ দেখতে। তবে কপাল খারাপ কেবল পার্থ-বালুদের (Partha Chatterjee- Jyotipriya Mallick)।

balu partha

ফাইনাল নিয়ে জেলে তর্কাতর্কি

আজ বিশ্বকাপ ফাইনাল। মুখোমুখি ভারত ও অস্ট্রেলিয়া। দুপুর ২টো বাজতেই রিমোর্ট হাতে সকলে টিভির সামনে। তবে পার্থ চট্টোপাধ্যায়, জ্যোতিপ্ৰিয় মল্লিকদের মত বিধায়কেরা বর্তমানে প্রেসিডেন্সিতে গারদবন্দি। তারা কী দেখতে পারবেন আজকের ম্যাচ? অন্তত কিছুক্ষণের জন্য হলেও কী টিভির সামনে বসতে পারবেন জেলবন্দি পার্থ-জ্যোতিপ্রিয়রা? এই নিয়েই ঝামেলা। জেলের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে শুরু তুমুল তর্ক-বিতর্ক।

আরও পড়ুন: নিয়োগ দুর্নীতিতে বিরাট সাফল্য! অযোগ্যদের চাকরির পেছনে কার হাত? জানিয়ে দিল CBI

হাইপ্রোফাইল হয়েও যন্ত্রনা

জেল সূত্রে খবর, প্রত্যেকটি ওয়ার্ডেই টিভি দেখার ব্যবস্থা রয়েছে। তাই বন্দিরা নিজেদের ওয়ার্ডে বসে খেলা দেখলে সেক্ষত্রে বিশেষ অসুবিধার কিছু নেই। তবে যেসকল ক্রিকেটপ্রেমী বন্দিরা সেলে রয়েছেন তাদের জন্য বিষয়টা সমস্যার। কারণ সেলে যে টিভি নেই। জেল কোড অনুযায়ী, সেলে টিভি রাখা নেই।

আরও পড়ুন: চলবে বিশ্বকাপ ফাইনাল! ওদিকে ফিরহাদকে নিয়ে মমতা যাবেন ‘বিশেষ’ কর্মসূচীতে, কোথায় জানেন?

একই ওয়ার্ডে পার্থ-বালুরা

প্রসঙ্গত, গত বছর থেকে নিয়োগ দুর্নীতির দায়ে প্রেসিডেন্সি জেলে বন্দি রয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। সেখানেই রয়েছেন তৃণমূলের আরও দুই বিধায়ক। প্রেসিডেন্সির ‘পহেলা বাইশ’ সেলে রয়েছেন পার্থ, মানিক ভট্টাচার্য, জীবনকৃষ্ণ সাহারা। সম্প্রতি এই জেলেই ঠাঁই হয়েছে রেশন দুর্নীতিতে ধৃত জ্যোতিপ্ৰিয় মল্লিকের।

ম্যাচ দেখার সৌভাগ্য হবে ‘হাইপ্রোফাইল’ বন্দিদের?

জেল সূত্রের খবর, এই সকল হাইপ্রোফাইল বন্দিদের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কারারক্ষীদের নাকি তারা প্রশ্ন করেছেন, কিছুক্ষণের জন্য হলেও কি তাদের ভারতের ফাইনাল দেখার সৌভাগ্য হবে? জেল কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গিয়েছে সেই সম্ভাবনা কম। কারণ দুপুর ২টো থেকে শুরু ম্যাচ। যে সময়ে খেলা শুরু, সেই সময় সেলের ভিতরই থাকতে হয় বন্দিদের।

partha manik balu

ভরসা শুধুই কারারক্ষীরা

বিকেলের দিকেও ম্যাচ দেখার সুযোগ প্রায় নেই। বিকেলে কিছু সময়ের জন্য সেল থেকে বেরোনোর সুযোগ দেওয়া হলেও সেই স্বল্প সময়ে অন্য ওয়ার্ডে গিয়ে তারা খেলা দেখতে পারবেন না বলেই খবর। তবে তাদের একমাত্র ভরসা কারারক্ষীরা। কারণ তাদের মাধ্যমে খেলার ফলাফল জানার সুযোগ খোলা রয়েছে পার্থদের। অর্থাৎ লাইভ খেলা নয় তো কী, খেলার ফলাফল দেখেই চালাতে হবে কাজ।

Sharmi Dhar
Sharmi Dhar

শর্মি ধর, বাংলা হান্ট এর রাজনৈতিক কনটেন্ট রাইটার। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৩ বছর ধরে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত ।

সম্পর্কিত খবর