টাইমলাইনভারত

দেশের বিশেষত ১৫ টি শহর করোনামুক্ত হলে, ভারতের জয় নিশ্চিত

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ দেশে (India) করোনা ভাইরাস (COVID-19) সংক্রামিত রোগীর সংখ্যা ধীরে ধীরে কমতে শুরু করেছে। তবে দেশের ১৫ টি শহরে বর্তমানে সকলেই নজর রেখেছেন। এই ১৫ শহরগুলি থেকে করোনার চক্রব্যুহ যদি ভেঙে যায়, তবে করোনার লড়াইটি জয় করা খুব সহজ হবে। নিতি আরোগ্যের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার অমিতাভ কান্ত দেশের ১৫ টি শহর চিহ্নিত করেছেন, যেখানে সর্বাধিক সংখ্যক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির সন্ধান পাওয়া গেছে। কমিশন আরও বলেছে যে এই শহরগুলির অবস্থার উন্নতি না হলে, করোনার অবস্থান সঠিকভাবে অনুমান করা যাবে না।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন ইতিমধ্যে দেশকে স্বস্তির খবর দিয়েছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের মতে, গত ৭ দিন ধরে ৮০ টি জেলায় একজনেরও করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়নি। স্বাস্থ্য মন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে, করোনা ভাইরাস ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ছে। দেশে করোনা থেকে যুদ্ধের মধ্যে, এখন ১৫ টি শহরের উপর সরকারের নজর সর্বাধিক হয়ে উঠেছে। নিতি আরোগ্যের তরফ থেকে যে ১৫ টি জায়গার নাম দেওয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে সাতটি শহরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। এর মধ্যে রয়েছে মহারাষ্ট্রের পুনে, আগ্রা (Agra), মধ্য প্রদেশের ইন্দোর, যোধপুর, তেলেঙ্গানার হায়দরাবাদ, রাজস্থানের জয়পুর, গুজরাটের আহমেদাবাদ এবং দিল্লির মুম্বই (Mumbai)। এ ছাড়া সুরাট, কর্নুল, চেন্নাই, থানে এবং ভোদোদার নামও এই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

করোনার এই শহরগুলিকে পরাজিত করতে সরকার বেশ কয়েকটি নতুন প্রকল্পের কাজও শুরু করেছে। নিতি আরোগ্যের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অমিতাভ কান্ত একটি টুইট করে বলেছেন যে, ‘এই ১৫ টি জেলায় বর্তমানে করোনার বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধের সবচেয়ে কঠিন জায়গা। এর মধ্যে সাতটি হল এমন শহর, যেখানে করোনা ভাইরাসে সবথেকে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা রয়েছে। করোনার সাথে এই যুদ্ধে ভারত কতটা সফল হবে এই শহরগুলির ভিত্তিতেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আমাদের এখানে আরও জোর এবং কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ, নিয়ন্ত্রণ, পরীক্ষা ও চিকিৎসার ব্যবস্থা শুরু করতে হবে’।

করোনার ভাইরাস দেশে তান্ডবলীলা চালিয়ে যাচ্ছে। ভারতে, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে মৃত্যুর সংখ্যা মঙ্গলবার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৩৭ এবং সংক্রামিত মানুষের সংখ্যা ২৯৯৭৪-এ পৌঁছেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রক সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘন্টার মধ্যে করোনার ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে ৫১ জন মারা গেছেন এবং সংক্রমণের ১৫৯৪ টি নতুন খবর পাওয়া গেছে। এখন অবধি দেশে ৭০২৬ জন রোগী সুস্থ হয়েছে এবং বর্তমানে ২২০১০ জন রোগী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে।

Back to top button