রাশিয়ায় আটকে ভারতের কয়েক হাজার কোটি! কীসের এই টাকা? চিন্তায় নয়া দিল্লি

বাংলা হান্ট ডেস্ক: রাশিয়ায় আটকে রয়েছে ভারতের কোটি কোটি টাকা। যে কারণে সমস্যায় পড়েছে ভারতের তেল কোম্পানিগুলি‌ (Oil Company)। বিদেশে ওএনজিসি (ওভিএল), অয়েল ইন্ডিয়া (ওআইএল), ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশন (আইওসি) এবং ভারত পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসিএল) নামে ব্যবসা চালায়। দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত এই তেল সংস্থাগুলির বিদেশি এই সব শাখার লভ্যাংশের অর্থ প্রায় ৬০০ মিলিয়ন ডলার। সেই টাকা রাশিয়ার (Russia) ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পড়ে রয়েছে। ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত তেল সংস্থাগুলি চাইছে, রাশিয়ায় আটকে থাকা তাদের লভ্যাংশের অর্থ থেকে ভারতের তেল আমদানির ব্যয় মেটানো হোক। ওই লভ্যাংশের অর্থ রাশিয়ায় তাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা করা হোক।

উল্লেখ্য, রাশিয়া ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে আক্রমণের পর পেমেন্ট চ্যানেল-সম্পর্কিত বিধিনিষেধের কোপে পড়ে। পশ্চিমী দেশগুলি রাশিয়ার উপর কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করায় এই বিপুল পরিমাণ টাকা ভারতে আনা সম্ভব হয়নি। এই নিয়ে গত কয়েক মাস ধরেই ভারতীয় তেল সংস্থাগুলি রুশ অংশীদারদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করছে। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে রাশিয়া সরকারের শীর্ষস্তরে আলোচনাও হয়েছে। কিন্তু সমাধান হয়নি। দীর্ঘদিন ধরে আটকে রয়েছে টাকা।

   

এই নিয়ে কর্মকর্তারা বলছেন, ‘রাশিয়ায় পড়ে থাকা এই বিপুল পরিমাণ টাকা অপরিশোধিত তেল কেনা সংস্থাগুলিকে ঋণ হিসেবে দেওয়া যেতে পারে।’ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তেল সংস্থার আধিকারিক বলেন, ‘এক্ষেত্রে সবচেয়ে সহজ এবং কার্যকর বিকল্প হতে পারে রাশিয়া থেকে তেল কেনার জন্য আংশিক অর্থ প্রদানের জন্য সেই আটকে থাকা লভ্যাংশের অর্থই ব্যবহার করা। কারণ, অনেক আর্থিক এবং আইনি জটিলতা রয়েছে। আমরা একটি সমাধানসূত্র খুঁজে বের করার জন্য চেষ্টা করছি। তেলের বকেয়াগুলির সঙ্গে সামঞ্জস্য করার জন্য সরাসরি অর্থ ব্যবহার করা সম্ভব নয়, কারণ তার সঙ্গে কর ব্যবস্থা, হিসেব, আন্তর্জাতিক কর-সহ নানা বিষয় জড়িত। আর, এই সব কারণেই ভারতীয় তেল সংস্থাগুলি মস্কোর বিরুদ্ধে পশ্চিমী দেশগুলির নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করতে চায় না। কারণ, ভারত ভালো করেই জানে যে এই নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করলে ভারতও (Bharat) নিষেধাজ্ঞার সম্মুখীন হবে।’ যদিও এই নিয়ে রাশিয়ার তরফে এখনও কোনও উত্তর মেলেনি।

Avatar
Monojit

সম্পর্কিত খবর