টাইমলাইনবিনোদনভারত

‘আমি ব‍্যর্থ, লজ্জায় মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছে’, লালকেল্লায় ‘হিংসাত্মক’ কৃষক আন্দোলন প্রসঙ্গে সরব কঙ্গনা

বাংলাহান্ট ডেস্ক: লজ্জায় মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছে, কৃষক আন্দোলন (farmers protest) ইস‍্যুতে ফের একবার মুখ খুললেন কঙ্গনা রানাওয়াত (kangana ranawat)। প্রজাতন্ত্র দিবসে (republic day) দিল্লির লালকেল্লায় ‘হিংসাত্মক’ কৃষক আন্দোলন প্রসঙ্গে নিজের ব‍্যর্থতা নিয়ে হা হুতাশ করতে দেখা গেল অভিনেত্রীকে। কঙ্গনার এই টুইট (tweet) এখন ভাইরাল সোশ‍্যাল মিডিয়ায়।

প্রজাতন্ত্র দিবসে লালকেল্লায় ও দিল্লি পুলিসের উপর আন্দোলনকারী কৃষকদের ‘তাণ্ডবের’ কিছু ছবির কোলাজ করে এক ব‍্যক্তি টুইট করেন, ‘বলিউডের ‘ক্রান্তিকারী’রা কোথায় যারা কঙ্গনাকে ট্রোল করছিলেন যখন তিনি এই কৃষক আন্দোলনের নাম করা মানুষদের উদ্দেশ‍্য কি তা জানতে চেয়েছিলেন? দিলজিৎ দোসাঞ্ঝ কোথায়?’


সেই টুইটটি রিটুইট করেই কঙ্গনা লেখেন, ‘আমি এটা এড়ানোর জন‍্য আমার সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু আমি ব‍্যর্থ হয়েছি। হয়তো আমি সিন্ধুতে বিন্দুর সমান কিন্তু আমার ব‍্যর্থতা প্রকাণ্ড। অন্তত আমার তাই মনে হয়। লজ্জায় আমার মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছে। আমি নিজের দেশের সংহতি রক্ষা করতে পারলাম না। আমি কেউ নই তাও আমিই সবকিছু। আর আমি আজ ব‍্যর্থ।’

এর আগেও প্রজাতন্ত্র দিবসে দিল্লির লালকেল্লায় আন্দোলনকারী কৃষকদের জোর করে প্রবেশ ও কৃষক সংগঠন নিশান সাহিবের পতাকা উত্তোলনের ঘটনা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন কঙ্গনা। ভিডিও বার্তায় ‘কৃষকরূপী সন্ত্রাসবাদী’দের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ দেখান তিনি।

কঙ্গনা বলেন, করোনাকে জয় করে ভারত এগিয়ে চলেছিল। গোটা বিশ্বের কাছে ভারত দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিল। কিন্তু আজ প্রজাতন্ত্র দিবসের মতো একটা দিনে কৃষকরূপী সন্ত্রাসবাদীরা যা করেছে তার জন‍্য দেশের মাথা হেঁট হয়ে গিয়েছে। লাল কেল্লা থেকে যেসব ছবি সামনে আসছে তা গোটা দেশকে নাড়িয়ে দিয়েছে।

কঙ্গনা আরো বলেন, এই সন্ত্রাসবাদীরা লাল কেল্লায় জোর করে ঢুকে তাণ্ডব চালিয়েছে, খালিস্তানের পতাকা উত্তোলন করেছে। এই দেশের আর কিছু হবে না। কেউ যদি এই দেশকে উন্নতির দিকে এক ধাপ।এগিয়ে নিয়ে যায় তাহলে অন‍্যরা ফের পেছনে টেনে আনে। গোটা বিশ্বের কাছে আমাদের দেশ, আমাদের সংবিধান, সুপ্রিম কোর্ট হাসির পাত্র হয়ে উঠেছে।

কঙ্গনা জোর গলায় দাবি করেন, যারা যারা এই কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করছে সবাইকে ধরে জেলে ঢোকানো হোক। কৃষক আন্দোলনের সমর্থকদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হোক। এখানেই শেষ নয়। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও দিলজিৎ দোসাঞ্ঝকে কটাক্ষ করে কঙ্গনা জিজ্ঞাসা করেন, এমনটাই তাঁরা চেয়েছিলেন কিনা।

Back to top button