ইনস্টাগ্রামে সাড়ে ৯ হাজার অনুগামী স্ত্রীর, আপত্তি করতেই মর্মান্তিক পরিণতি স্বামীর

বাংলা হান্ট ডেস্ক : এখন সবার হাতেই স্মার্টফোন (Smartphone)। স্মার্টফোন ছাড়া মানুষ চলতেই পারে না। হাতেই যে শুধু ধরে রাখে ফোনটি এমনটা কিন্তু মোটেও না। ফোনের মধ্যে রয়েছে এক সে এক অ্যাপ (App)। সেই অ্যাপের মধ্যে রয়েছে নানান সব মজাদার জিনিস। আর সেই নিয়েই ব্যস্ত আজকাল সব মানুষ। আর সেই অ্যাপের কারণেই ঘটে গেলো এক দুর্ঘটনা। কী এমনই  ঘটেছে? জানতে হলে চোখ রাখুন প্রতিবেদনটির উপর।

   

আজকাল ছোটো থেকে শুরু করে প্রাপ্তবয়স্ক এবং বৃদ্ধরাও পর্যন্ত ইনস্টাগ্রামে (Instagram) রিল বানাতে ভালোবাসেন। এমনি এক বেগুসরাইয়ের (Begusarai) ফাফৌট গ্রামে (Fafout Village) এক বিবাহিত মহিলা যে রিল (Reel) বানাতে ভীষণ ভালোবাসতেন। কিন্তু তার স্বামী এই রিল বানানো নিয়ে আপত্তি জানান। ফলে খুন হয় স্বামীর, এমনি অভিযোগ উঠেছে স্ত্রীর নামে।

মিডিয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী, মৃত স্বামীর নাম মহেশ্বর কুমার রাই (Maheshwar kumar Rai) ৷ গত ৬ বছর আগে রানি কুমারীর (Rani Kumari) সাথে বিয়ে করেছিলেন তিনি। এবং তাদের একটা ৫ বছরের ছোট্ট সন্তানও রয়েছে। মহেশ্বর বয়স ২৫ বছর, তিনি কলকাতায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করতেন। তার স্ত্রী রিল বানাতে ভালোবাসতেন। শুধু ভালোবাসতেন না রিল বানানো যেন তার নেশা হয়ে উঠেছিল। বিভিন্ন ভাইরাল গানের সাথে রিল বানিয়ে পোস্ট করতেন রানি। তার ইনস্টাগ্রামে প্রায় ৯ হাজারের মতো ফলোয়ার আছে।

এই রিল বানানো একেবারেই পছন্দ করতেন না মহেশ্বর। তিনি এই বিষয়ে আপত্তি জানালে তার স্ত্রীয়ের সঙ্গে তার বচসা শুরু হয়। গত কাল বচসা চলাকালীন মহেশ্বর বাড়ি থেকে বেরিয়ে তার শশুরবাড়ি যান। তার ভাই তাকে ফোন করলে তিনি কিছুতেই ফোনটি ধরেন না। পরোক্ষনে অন্য এক ব্যক্তি ফোনটি ধরেন।

তখনই সন্দেহ হয় তাদের, তারপর শশুরবাড়ি গিয়ে মহেশ্বরের দেহটি উদ্ধার করেন তার পরিবারের লোকজন। সেই পরিবারই রানির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। এক সাক্ষাৎকারে মৃতের বাবা বলেন, ‘তার ছেলেকে খুন করা হয়েছে। এছাড়া আমার ছেলের দেহ লোপাটেরও চেষ্টা করা হয়েছিল’। এই বিষয় নিয়ে সেখানকার পুলিশ তদন্ত শুরু করেছেন।