বিরাট চমক! শুভেন্দুর হাত ধরে BJP-তে কৃষ্ণনগরের রানিমা অমৃতা, চাপ বাড়ছে মহুয়ার?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ জল্পনা চলছিল অনেকদিন ধরেই। অবশেষে সেই জল্পনায় শিলমোহর দিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিলেন কৃষ্ণনগর রাজপরিবারের বর্তমান রানিমা অমৃতা রায় (Rani Maa Amrita Roy)। চব্বিশের লোকসভা নির্বাচনে (Lok Sabha Election 2024) কৃষ্ণনগর কেন্দ্রের প্রার্থীর নাম এখনও ঘোষণা করেনি বিজেপি। আগেই অনুমান করা হয়েছিল, তৃণমূলের মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে হেভিওয়েট কোনও প্রার্থী দিতে চলেছে পদ্ম-শিবির। এরপর সামনে আসে রানিমা অমৃতার নাম। এবার তিনি বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় সেই জল্পনা আরও তীব্র হল।

আসন্ন লোকসভা ভোটে কৃষ্ণনগর (Krishnanagar) কেন্দ্রের দিকে নজর রয়েছে অনেকের। গতবারের জয়ী সাংসদ মহুয়া মৈত্রকে এবারও টিকিট দিয়েছে তৃণমূল (TMC)। তাঁর বিরুদ্ধে বিজেপি কাকে দাঁড় করাবে তা নিয়ে জল্পনা-কল্পনা চলছিল অনেকদিন ধরে। এরপর সামনে আসে রানিমা অমৃতা রায়ের নাম। প্রার্থী তালিকা প্রকাশের আগেই রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর হাত থেকে গেরুয়া পতাকা তুলে নিলেন তিনি।

   

মঙ্গলবার মহারাজ কৃষ্ণচন্দ্রের প্রতিষ্ঠিত কালী মন্দিরে পুজো দেন রানি মা অমৃতা। রাজপরিবার থেকে রাজনীতির আঙিনা! গেরুয়া শিবিরে (BJP) যোগ দেওয়ার আগে অমৃতাদেবী স্বীকার করে নেন, রাজনীতির কিছু বোঝেন না। তবে বাংলাকে তুলে ধরার ইচ্ছা রয়েছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুনঃ ২৪ ঘণ্টা অতিক্রান্ত, অরূপ বিশ্বাসের ভাইয়ের বাড়িতে এখনও জারি আয়কর তল্লাশি! কোন নথির খোঁজ চলছে?

এদিকে বিজেপির প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে কোনও মন্তব্য করতে চাননি রানিমা। অমৃতাদেবী বলেন, ‘প্রথমে প্রার্থী তালিকা প্রকাশিত হোক। এরপর এই বিষয়ে বিশদে কথা বলব’। বুধবার রানিমা অমৃতার পাশাপাশি কৃষ্ণনগর পুরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলর সহ আরও কয়েকজন পদ্ম-শিবিরে যোগ দেন।

rani maa amrita roy joins bjp

প্রসঙ্গত, এদিন করিমপুরে একটি জনসভায় গিয়েছিলেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক তথা রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু। এরপর সেখান থেকে কৃষ্ণনগরের নগেন্দ্রনগরে একটি দলীয় কার্যালয়ের উদ্বোধন করেন। এখানেই তাঁর হাত থেকে গেরুয়া পতাকা তুলে নেন রানিমা। অনুমান করা হচ্ছে, চব্বিশের লোকসভা ভোটে কৃষ্ণনগর কেন্দ্রে তাঁকেই টিকিট দেবে পদ্ম-শিবির। ভোট ময়দানে মহুয়া বনাম রানিমার এই লড়াইয়ে শেষ হাসি কে হাসে সেটাই এবার দেখার।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর