এবার কী বেসুরো কুণাল? দুর্নীতি কাণ্ডে দিলীপের আক্রমণকে ‘ভালো লক্ষণ’ বললেন TMC নেতা

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সাম্প্রতিক সময়ে বাংলায় একের পর এক দুর্নীতি এবং হিংসার ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেসকে (Trinamool Congress) আক্রমণ শানাতে দেখা যায় বিজেপি (BJP) নেতা মন্ত্রীদের। তবে এবার বিজেপির কটাক্ষ মাঝে এটিকে ‘ভালো লক্ষণ’ বলে বসলেন তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ (Kunal Ghosh)।কিন্তু কেন?

   

আসলে বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে নিয়োগ সংক্রান্ত দুর্নীতি থেকে কয়লা এবং গরু পাচার মামলার পাশাপাশি বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে হিংসার ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেসকে কোণঠাসা করতে মরিয়া বিজেপি। শুধু তাই নয়, বর্তমানে দিল্লি পুরসভার ভোটের প্রচারে রাজধানীতে গিয়েও তৃণমূলকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিজেপি সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালের সঙ্গে মমতার তুলনা টেনে বাংলার নিয়োগ দুর্নীতি এবং বকেয়া ডিএ প্রসঙ্গ তুলে ধরেন দিলীপ আর সেই ইস্যুতেই এবার প্রতিক্রিয়া জানালেন কুণাল ঘোষ।

এদিন তৃণমূল মুখপাত্র বলেন, “এটা খুবই ভালো লক্ষণ। দিল্লিতে গিয়েও বর্তমানে বিজেপি নেতারা তৃণমূলকে আক্রমণ শানাচ্ছে। এইভাবে আস্তে আস্তে অন্যান্য সকল রাজ্যে বিজেপি নেতারা যখন যাবেন, তখন তৃণমূলকেই মূল শত্রু হিসেবে তুলে ধরবেন।”

উল্লেখ্য, বর্তমানে দিল্লি পুরভোটের প্রচারের জন্য রাজধানীতে পৌঁছে গিয়েছেন বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ। তবে সেখানে গিয়ে আপ প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে আক্রমণ করার পাশাপাশি দিলীপের বক্তব্যে উঠে আসে তৃণমূল কংগ্রেস এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রসঙ্গ। তিনি বলেন, “দিল্লিতে যেমন অনুপ্রবেশকারীদের আশ্রয় দিয়ে চলেছে কেজরিওয়াল, ঠিক তেমনি ভাবে বাংলাতেও একই কাজ করছেন মমতা। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে গুলি এবং বোমার লড়াই থেকে শুরু করে হিংসার ঘটনায় খুন হচ্ছে তৃণমূল কর্মীরাও। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির পাশাপাশি অন্যান্য একাধিক বিষয়ে তোলপাড় বাংলা।”

তবে শুধুমাত্র দিলীপ ঘোষই নন, সম্প্রতি বিজেপি নেতাকে চরম কটাক্ষ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নিয়োগ দুর্নীতি ইস্যুতে দিলীপকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, “সিবিআই আর ইডি বর্তমানে ছোট ছোট ঘটনার তদন্ত করছে। কিন্তু নির্বাচনের খরচে এত টাকার উৎস কি, তা কেউ খোঁজ নিচ্ছে না। সম্প্রতি অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে দলিল পাওয়ার ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু পরবর্তীতে বিজেপি নেতার দলিল এবং সিজার লিস্ট পাওয়া গেলেও তাঁকে কেন গ্রেফতার করা হচ্ছে না।”

Kunal Ghosh

পাশাপাশি তৃণমূল নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে যখন তল্লাশি চালানো হচ্ছিল, তখন অর্পিতার নামে দলিল খুঁজে পেয়েছিল ইডি। সেই কারণেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। তবে বর্তমানে দিলীপ ঘোষের নামে দলিল পাওয়া গেলেও তাঁকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না।” ফলে সব মিলিয়ে একদিকে অভিষেক-মমতা-কুণাল এবং অপরদিকে দিলীপ ঘোষের দ্বন্দ্বে বঙ্গ রাজনীতিতে বিতর্ক যে আরও বৃদ্ধি পাবে, তা বলা বাহুল্য।

সম্পর্কিত খবর