রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে আজই রাজভবন যাচ্ছেন মমতা! কী হতে চলেছে? তুঙ্গে জল্পনা

   

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বাংলায় রাজ্য-রাজ্যপাল সংঘাত তুঙ্গে। বিগত কিছুমাস ধরে একাধিক ইস্যুতে রাজভবন ও নবান্নের মধ্যে মতবিরোধ হয়েছে। উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে তো সংঘাত চরমে পৌঁছেছিল। বর্তমানে অবশ্য কিছুটা ঠান্ডা মহল। এই আবহেই বৃহস্পতিবার সন্ধেয় রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের (CV Anand Bose) সঙ্গে দেখা করতে রাজভবনে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)।

কিন্তু কেন? নবান্ন সূত্রে খবর, দুর্গাপুজোর পর রাজ্যপালকে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানাতেই রাজভবন যাচ্ছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। সম্প্রতি উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে রাজ্যের মামলা সুপ্রিম পর্যন্ত গড়িয়েছে। সেখানে রাজ্যের সর্বোচ্চ আদালতে রায় রাজ্যপাল বোসের পক্ষে না গেলেও উভয় পক্ষকেই গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছিল আদালত।

আরও পড়ুন: হাসপাতালের আর্জি খারিজ! জ্যোতিপ্রিয়কে নিয়ে বড় নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট

পর্যবেক্ষণে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছিল, রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান ও সাংবিধানিক প্রধানের মধ্যে কোনও ইগো থাকবে তেমনটা প্রত্যাশিত নয়। বরং তাদের মধ্যে যাতে সমন্বয় থাকা উচিৎ। রাজ্যপাল যেন মুখ্যমন্ত্রীকে কফির আমন্ত্রণ করে তার সঙ্গে কথা বলেন তেমনটাও বলেছিল আদালত।

তবে রাজ্যপাল নয় এবার খোদ মুখ্যমন্ত্রী যাচ্ছেন রাজভবনে। আজকের এই সাক্ষাতে দুই পক্ষের মধ্যে সম্পর্ক কিছুটা হলেও স্বাভাবিক হতে পারে। প্রসঙ্গত স্পেন সফর থেকে ফেরার পর বহুদিন অসুস্থ হয়ে বাড়িতেই ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। পুজোতেও পায়ের ব্যাথার জন্য বাইরে আসেন নি মাননীয়া। শেষমেষ বিজয়া সম্মিলনীর অনুষ্ঠানে গৃহবন্দি দশা কাটে মমতার। গতকাল নবান্নে বৈঠকও করেন মুখ্যমন্ত্রী। আর আজ চললেন রাজভবনে।

mamata banerjee slam

আরও পড়ুন: উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য সুখবর! বিরাট আপডেট দিল সংসদ, জারি হল বিজ্ঞপ্তি

তবে এখানে একটা বিষয় উল্লেখ করা যেতে পারে, বহুদিন পর সম্প্রতি একটি ব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন হয়েছেন রাজ্যপাল বোসও।প্রসঙ্গত, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউনেস্কো হেরিটেজ সাইটের জন্য যে ফলক লাগানো হয়েছে, তাতে রাখা হয়নি খোদ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম। যা নিয়ে রাজ্যের পাশাপাশি সমালোচনায় না সরব হন বোসও।

Sharmi Dhar
Sharmi Dhar

শর্মি ধর, বাংলা হান্ট এর রাজনৈতিক কনটেন্ট রাইটার। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৩ বছর ধরে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত ।

সম্পর্কিত খবর