পান্তা খেয়ে ভোট প্রচারে বেরোনো চন্দনা বাউরির জয়ে ‘গর্বিত’ বিজেপি

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ একুশের হাইভোল্টেজ লড়াইয়ের সবদলের প্রার্থী তালিকায় লক্ষ্য করা গিয়েছিল চমকে পর চমক। সেই মত নুন আনতে পান্তা ফুরোনো সংসারের বধু চন্দনা বাউরিকে প্রার্থী করেছিল বিজেপি। স্বামী রাজমিস্ত্রি, আর তিনি নিজে স্বামীর সঙ্গে জোগান দেওয়ার কাজ করেন। এমনকি বাড়িতে নেই শৌচাগারও। সেই ভাঙা ঘরে চাঁদের আলো জ্বালিয়েছে বিজেপি। শালতোড়া কেন্দ্রে প্রার্থী হয়েছিলেন চন্দনা (Chandana Bauri)।

   

দল তাঁকে প্রার্থী করার পর তিনি জানিয়েছিলেন যে, ‘তিনি সৌভাগ্যবতী ভারতের অন্যতম বিজেপি তাঁকে লড়াইয়ের সুযোগ করে দিয়েছেন।’ তারপর তিনি এও জানিয়েছিলেন সাকালে পান্তা খেয়ে প্রচারে বেরিয়ে পড়ি, স্বামী আমার প্রচারে সঙ্গ দেন, সংসার কিভাবে চালাব বুঝতে পারছিলাম, তখন দলের (BJP) নেতাকর্মীরা আমাদের সাহায্য করেছেন’।

সেই চন্দনা বাউরির কেন্দ্র শালতোড়ার দিকে এবারের প্রেস্টিজ ফাইটে নজর ছিল সব মহলের। যে ভোটে তারকা প্রার্থীদের আনাগোনা অহরহ। সেখানে চন্দনার লড়াইয়ের দিকেই নজর ছিল সকলের। এদিন ভোট গণনার শুরু থেকেই চন্দনা কাটার টক্কর দিয়েছেন। শেষে ৪১৪৫ ভোটে তিনি জয় হাসিল করে নিয়েছেন। তাঁর জয়ে ‘গর্বিত’ গেরুয়া শিবির। বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে চন্দনা বাউরিকে শুভেচ্ছাও জানানো হয়েছে। বলা হয়েছে, ‘ আপনার জয়, আমাদের সকলের জয়’।

https://www.facebook.com/2067079656889669/posts/2839102839687343/?sfnsn=wiwspwa

অন্যদিকে, নন্দীগ্রাম আসনে চলছে মহা নাটক! সেখানে ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ১২০০ ভোটে জয় যুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু সন্ধ্যা গড়াতেই প্রশ্ন উঠতে থাকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জয় নিয়ে। জানানো হয় ১৬০০ ভোটে জিতলেন শুভেন্দু অধিকারী। এনিয়ে শুভেন্দু অধিকারী জানান, ‘আমি জিতেছি’ আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ‘নন্দীগ্রাম যা রায় দেবে মাথা পেতে নেব’। অপেক্ষা প্রকৃত খবরের জন্য।