টাইমলাইনভারত

ক্ষমতা থাকলে কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিক বিরোধীরা, ওপেন চ্যালেঞ্জ প্রধানমন্ত্রী মোদীর

দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর থেকে অ্যাকশন মুডে আছে কেন্দ্রের মোদী সরকার। দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় আসার পর লোকসভার প্রথম অধিবেশনে রেকর্ড গড়েছে কেন্দ্রের মোদী সরকার। একের পর এক বিল পেশ ও পাশ করিয়ে বিগত সমস্ত রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে মোদী ২.০ সরকার। আর যেসব বিল পাশ হয়েছিল তাঁদের মধ্যে অন্যতম ছিল তিন তালাক আইন, UAPA বিল (Unlawful Activities (Prevention) Act) এবং কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়া।

এই তিনটে অন্যতম বিল পাশ করানোর সময় মোদী সরকারের বিরোধীরা লোকসভা এবং রাজ্যসভা দুটো যায়গাতেই চরম হাঙ্গামা করে। কিন্তু কোন ভাবে এই বিল গুলোকে আটকাতে পারেনি বিরোধীরা। তিন তালাক বিলের বিরোধিতা করে হায়দ্রাবাদের সাংসদ আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেছিল, ‘ইসলামে বিবাহ কোন বন্ধন নয়। ওটা একটা কন্ট্রাক্ট মাত্র।” তেমনই কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার কংগ্রেসের সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কাশ্মীর নিয়ে বিতর্কিত বয়ান দিয়েছিলেন। যদি পরে তিনি ওনার ওই বয়ান নিয়ে সাফাইও দিয়েছিলেন।

লোকসভা ভোট শেষ হওয়ার পর এবার মহারাষ্ট্রের বিধানসভা ভোটের প্রস্তুতিতে নেমেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। আর সেই ক্রমেই আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জলগাঁওতে একটি নির্বাচনী জনসভায় অংশ নিতে যান। সেখান থেকে তিনি কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়া আর তিন তালাক বিল পাশ নিয়ে বিরোধীদের ওপেন চ্যালেঞ্জ জানান।

রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, বিরোধীরা তিন তালাক বিল পাশ আর কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর কান্নায় ভেঙে পড়েছে। তিনি কংগেস আর এনসিপির নাম না নিয়েই আক্রমণ করে বলেন, যদি বিরোধীদের ক্ষমতা থাকে, তাহলে তাঁরা নির্বাচনী ইস্তেহারে লিখুক যে, ক্ষমতায় আসলে তাঁরা আবার কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বহাল করবে এবং তিন তালাক আইন ফেরত নেবে। এরপর উনি মহারাষ্ট্রের দুই বিরোধীদলের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের হয়ে ওকালতি করার অভিযোগ তোলেন।

Back to top button