টাইমলাইনভারত

যোগীরাজ্যে দুই টপ টেন অপরাধীর কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত, ব্যান্ড পার্টি নিয়ে পৌঁছেছিল পুলিশ

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ উত্তর প্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ (Yogi Adityanath) সরকার দ্বারা অপরাধী ও অপরাধ দমনে নিয়মিত চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। রাজ্যের বড় মাফিয়া থেকে শুরু করে জেলায় অপরাধের সাম্রাজ্য চালানো অপরাধীদের বিরুদ্ধে সরকার কোপ পড়ছে। আর সেই ক্রমেই রবিবার রায়বেরালি পুলিশ জেলার টপ তেন অপরাধীদের কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে সরকারের বোর্ড টাঙায় সেখানে।

রায়বেরালিতে রবিবারের ভোরের আলো জেলার টপ টেন অপরাধীদের জন্য খারাপ খবর নিয়ে এসেছিল। জেলার টপ টেন অপরাধীদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে পুলিশ ব্যান্ড বাজা নিয়ে আসে। পুলিশের এই উদ্যোগ অপরাধীদের কড়া বার্তা দেওয়ার সাথে সাথে এলাকার মানুষদের সচেতন করার জন্য ছিল। রায়বেরালি শহরের পুলিশ এলাকার কুখ্যাত অপরাধী রাজু সুনারের কোটি কোটি টাকার সম্পত্তির সাথে সাথে একটি গাড়িও বাজেয়াপ্ত করে। এছাড়াও সত্যেন্দ্র যাদব নামের আরেক অপরাধীর গাড়ি এবং সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে অপরাধ এবং অপরাধীদের উপর লাগাম লাগানোর চেষ্টা করে পুলিশ।

উল্লেখ্য, যোগী আদিত্যনাথের কড়া বার্তার পর উত্তর প্রদেশের বেশ কয়েকটি জেলায় মাফিয়া আর অপরাধীদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার কাজ শুরু হয়েছে। এর সাথে সাথে অপরাধীদের দ্বারা অবৈধ ভাবে কবজা করা বিল্ডিংয়ে সরকারের বুলডোজার চালানো হচ্ছে। মুখতার আনসারি, আতিক আহমেদ, খান মুবারক, সুনীল ভাট্টির মতো ভুমাফিয়াদের বিরুদ্ধে যোগী সরকার কোমর বেঁধে নেমেছে।

আরেকদিকে, সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল উত্তর প্রদেশের কুখ্যাত গ্যাংস্টার ফিরোজ আলীর (Gangster Firoz Ali)। এই দুর্ঘটনা মধ্যপ্রদেশের বৈতুল জেলায় হয়েছে। লখনউ পুলিশ ফিরোজ আলীকে পাকড়াও করে একটি ইনোভা গাড়িতে বসিয়ে নিয়ে যাচ্ছিল। বৈতুলে একটি নীলগাইয়ের সাথে আচমকাই ইউপি পুলিশের গাড়ির সংঘর্ষ হয়, এরপর গাড়ি পালটি খায়। দুর্ঘটনায় পুলিশের গাড়িটি ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই দুর্ঘটনায় কুখ্যাত গ্যাংস্টার ফিরোজ আলীর মৃত্যু হয় আর ইউপি পুলিশের (UP Police) এক কর্মীর হাত ভেঙে যায়।

উত্তর প্রদেশ পুলিশের আধিকারিক জানান, ফিরোজ আলীকে মুম্বাই থেকে নিয়ে আশা হচ্ছিল। তাঁর বিরুদ্ধে আদালত ওয়ারেন্ট জারি করেছিল, সেই ভিত্তিতে পুলিশ তাকে ইনোভা গাড়ি করে লখনউ নিয়ে যাচ্ছিল। গোয়ালিয়র-গুনা হাওইয়েতে আচমকা একটি নীলগাই গাড়ির সামনে চলে আসে, যার ফলে লখনউ পুলিশের গাড়ির ড্রাইভার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে।

এই দুর্ঘটনায় ফিরোজ আলীর মৃত্যু হয় আর লখনউ পুলিশের সাবইনস্পেকটর জগদীশ প্রসাদ এবং সিপাই সঞ্জীব আহত হন। লখনউ পুলিশ অনুযায়ী, গ্যাংস্টার ফিরোজ আলীর বিরুদ্ধে লুটপাট, আর চুরির ছয়টি মামলা চলছিল। আদালত ফিরোজ আলীর গ্রেফতারীর ওয়ারেন্ট জারি করেছিল। উত্তর প্রদেশ পুলিশ তাকে মুম্বাই থেলে গ্রেফতার করে লখনউ নিয়ে যাচ্ছিল।

জানিয়ে দিই, কয়েকমাস আগে উত্তর প্রদেশের কুখ্যাত গ্যাংস্টার বিকাশ দুবেকে মধ্যপ্রদেশ থেকে আনার সম্য উত্তর প্রদেশ পুলিশ গাড়ি দুর্ঘটনাগ্রস্ত হয়েছিল। কানপুর পৌঁছানোর আগেই বৃষ্টির কারণে পুলিশের গাড়ি দুর্ঘটনাগ্রস্ত হয়ে পড়ে। পুলিশ জানায়, এই দুর্ঘটনার পর কুখ্যাত গ্যাংস্টার পালানর চেষ্টা করলে তাকে এনকাউন্টার করে নিকেশ করা হয়।

 

Back to top button