বাংলায় BJP-র বাকি প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হবে কবে? দিনক্ষণ জানালেন সুকান্ত

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ লোকসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করে দিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। কমবেশি প্রত্যেকটি দলই নিজেদের ‘রণনীতি’ নিয়ে তৈরি। বাংলার বুকেও চলছে জোরকদমে প্রচার। ইতিমধ্যেই ৪২টি আসনের প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তবে বিজেপির অর্ধেকের বেশি আসনে প্রার্থী (BJP Candidate List) দেওয়া বাকি।

এখনও অবধি দুই দফায় প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে গেরুয়া শিবির। এর মধ্যে প্রথম তালিকায় বাংলার ২০টি কেন্দ্রের প্রার্থীর নাম ছিল। তবে এর মধ্যে আসানসোল কেন্দ্রের বিজেপি (BJP) প্রার্থী পবন সিং নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান। ফলে ৪২টি আসনের মধ্যে সবে ১৯টি আসনের প্রার্থীর নাম প্রকাশ করেছে পদ্ম-শিবির, এখনও বাকি ২৩টি। কবে ঘোষণা হবে বাকি প্রার্থীদের নাম? এবার এই নিয়ে মুখ খুললেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumdar)।

   

বাংলা জুড়ে প্রচার শুরু করে দিয়েছে তৃণমূল। দেব থেকে শুরু করে রচনা, ভোট প্রচারে (Lok Sabha Election 2024) নেমে পড়েছেন জোড়াফুলের একাধিক প্রার্থী। কিন্তু বিজেপির বাকি ২৩টি আসনের প্রার্থীদের নাম প্রকাশ করতে এত সময় লাগছে কেন? সম্প্রতি এই প্রসঙ্গে সুকান্ত মজুমদার বলেন, ‘সব ঠিক হয়ে গিয়েছে। আশা করছি আগামী ২২-২৩ তারিখের মধ্যে আমাদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ পেয়ে যাবে’।

আরও পড়ুনঃ অবৈধ রোহিঙ্গা মুসলিমদের ভারতে কোনও জায়গা নেই! সুপ্রিম কোর্টে স্পষ্ট জানাল কেন্দ্র

এরপরেই তৃণমূলকে খানিক খোঁচা দিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি বলেন, ‘আমাদের র‍্যাম্পে হেঁটে প্রার্থী তালিকা প্রকাশের নিয়ম নেই। আমাদের দলে প্রথমে রাজ্য শাখা বৈঠক করে। এরপর তাদের সঙ্গে সর্বভারতীয় নেতাদের আলোচনা হয়। সব শেষে পার্লামেন্টারি বোর্ড বসে। সেখানে প্রধানমন্ত্রীও উপস্থিত থাকেন। বোর্ড বসলেই প্রার্থী তালিকা প্রকাশ পাবে’।

sukanta majumdar on bjp candidate list

এদিকে কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে, কাকে টিকিট দেওয়া হবে তা নিয়ে একমত হতে পারছে না পদ্ম-শিবির। সেই কারণেই বাকি আসনের প্রার্থীদের নাম প্রকাশ করতে সময় লাগছে। উত্তরবঙ্গের তিনটি আসন রায়গঞ্জ, দার্জিলিং এবং জলপাইগুড়িতে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হচ্ছে বলে খবর। শোনা যাচ্ছে দার্জিলিং কেন্দ্র থেকে রাজু বিস্তাকে টিকিট দেওয়া হবে নাকি প্রাক্তন বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলাকে তা নিয়ে চর্চা চলছে। দলের একাংশের মত রাজুর পক্ষে, আরেকাংশের হর্ষবর্ষের। ফলে ঐক্যমত্যে আসা যাচ্ছে না। এদিকে রায়গঞ্জ এবং জলপাইগুড়ি থেকেও নাকি অনেকে টিকিট চাইছেন বলে খবর। এই বিষয়ে সুকান্ত বলেন, দলের ভেতর কোনও কোন্দল নেই। একাধিক দাবিদার থাকাটা খারাপ কিছু নয় বলেও দাবি করেন তিনি।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর