‘সুপ্রিম’ স্বস্তি শুভেন্দুর! আপাতত কোনো FIR নয়, হাইকোর্টের রায় খারিজ করে দিল শীর্ষ আদালত

   

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) গিয়ে বড়সড় স্বস্তি পেলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (BJP Leader Suvendu Adhikari)। কিছুদিন আগেই তার বিরুদ্ধে এফআইআর করা যাবে বলে রায় দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি ইন্দ্রপ্রসন্ন মুখোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ। তবে এদিন সেই নির্দেশ খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট।

এদিন শীর্ষ আদালত জানায়, বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীকে রক্ষাকবচ নিয়ে বলার সুযোগ দিতে হবে আদালতের। শুক্রবার শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, বিচারপতি জেবি পারদিওয়ালা এবং বিচারপতি মনোজ মিশ্রের বেঞ্চের মন্তব্য,’ এই মামলাটি নতুন করে শোনার জন্য হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিকে অনুরোধ করছি। ”

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ, “২০ জুলাই হাইকোর্টের বিচারপতি ইন্দ্রপ্রসন্ন মুখোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চের এফআইআর দায়ের সংক্রান্ত নির্দেশ খারিজ করা হল। হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিকে এই মামলা পুনরায় বিচার করে উপযুক্ত নির্দেশ দিতে পারেন।’

প্রসঙ্গত, শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে কোনও FIR দায়ের করা যাবে না বলে নির্দেশ দিয়েছিলেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা। তবে বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে ভোটের হিংসায় প্ররোচনা, উস্কানিমূলক মন্তব্যের দেওয়ার মতো অভিযোগ তুলে শুভেন্দুর বিরুদ্ধে এফআইআর (FIR) দায়ের করার আবেদন জানিয়ে জনস্বার্থ মামলা করা হয় কলকাতা হাইকোর্টে (Calcutta High Court)।

সেই মামলাতেই আদালত নির্দেশ দেয়, শুভেন্দুর বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া অভিযোগের সত্যতা খতিয়ে দেখবে পুলিশ। অভিযোগের গ্রহণযোগ্যতা থাকলে সেই নিয়ে পুলিশকে এফআইআর দায়েরও অনুমতি দেয় হাইকোর্ট। সেই মামলার শুনানিতে বিচারপতি ইন্দ্রপ্রসন্ন মুখোপাধ্যায় এবং বিচারপতি বিশ্বরূপ চৌধুরীর ডিভিশন বেঞ্চের জানায়, সংবিধানের ৩৬১ ধারা অনুযায়ী ফৌজদারি মামলার ক্ষেত্রে কেবলমাত্র রক্ষাকবচ পেয়ে থাকেন রাষ্ট্রপতি ও রাজ্যপাল। তাই এক্ষেত্রে অভিযুক্তকে তাদের ঊর্ধ্বে রাখার ব্যাখ্যা গ্রহণ করবেনা আদালত।

suvendu adhikari

এরপর গত ২০ জুলাই বিচারপতি ইন্দ্রপ্রসন্ন মুখোপাধ্যায় এবং বিচারপতি বিশ্বরূপ চৌধুরীর ডিভিশন বেঞ্চ জানায়, এই মামলার সাথে বৃহত্তর জনস্বার্থ জড়িয়ে আছে কিনা সেই বিষয়ে তদন্ত হওয়া উচিৎ। তবে আদালতের অনুমতি ছাড়া পুলিশ কোনও কড়া পদক্ষেপ করতে পারবে না বলেও সেই সময় নির্দেশ দিয়েছিলেন দুই বিচারপতির বেঞ্চ। হাইকোর্টের এই রায়ের বিরোধীতা করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন শুভেন্দু অধিকারী। আজ সেই মামলাতেই বড় স্বস্তি পেলেন বিরোধী দলনেতা।

Sharmi Dhar
Sharmi Dhar

শর্মি ধর, বাংলা হান্ট এর রাজনৈতিক কনটেন্ট রাইটার। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৩ বছর ধরে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত ।

সম্পর্কিত খবর