১০ বছরে এই প্রথম! টাটা গ্রুপের সবচেয়ে লাভজনক সংস্থার তালিকায় পিছিয়ে পড়ল TCS, প্রথম স্থানে কে?

বাংলা হান্ট ডেস্ক: বড় পরিবর্তন পরিসংখ্যানে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, দেশের (India)বৃহত্তম আইটি সংস্থা TCS (Tata Consultancy Services Limited) আর টাটা গ্রুপের (Tata Group) সবচেয়ে লাভজনক সংস্থা নয়। এমতাবস্থায়, এক দশকের মধ্যে প্রথমবার এই পরিসংখ্যানে TCS-এর থেকে এগিয়ে গিয়েছে টাটা মোটরস (Tata Motors)। ২০২৪ সালের অর্থবর্ষের চতুর্থ ত্রৈমাসিকে টাটা মোটরসের কন্সলিডেটেড নেট প্রফিট দাঁড়িয়েছে ১৭,৪৮৩ কোটি টাকায়।

ওই সময়ের মধ্যে, TCS-এর কন্সলিডেটেড নেট প্রফিট হয়েছে ১২,৪৩৪ কোটি টাকা। এদিকে, গত বছরের একই ত্রৈমাসিকের তুলনায় টাটা মোটরসের নিট প্রফিট ২১৩.৭ শতাংশ বেড়েছে। গত বছরের চতুর্থ ত্রৈমাসিকে এটি ছিল ৫,৫৭৩.৮ কোটি টাকা। অন্যদিকে, গত বছরের তুলনায় TCS-এর প্রফিট বেড়েছে মাত্র ৯.১ শতাংশ। গত বছর একই ত্রৈমাসিকে এই আইটি কোম্পানির প্রফিট ছিল ১১,৩৯২ কোটি টাকা।

   

TCS slips back in Tata group's list of most profitable companies.

বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের একটি রিপোর্ট অনুসারে, টাটা গ্রুপের ১৬ টি কোম্পানি এখনও পর্যন্ত তাদের চতুর্থ ত্রৈমাসিকের ফলাফল প্রকাশ করেছে। গত বছরের তুলনায় ওই কোম্পানির কম্বাইন্ড নেট প্রফিট বেড়েছে ৬৪ শতাং। এদিকে, টাটা গ্রুপের কোম্পানি টাটা স্টিল এখনও তাদের ফলাফল প্রকাশ করেনি। এমতাবস্থায়, টাটা গ্রুপের কোম্পানিগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রফিট অর্জনের ক্ষেত্রে টাটা মোটরস প্রথম স্থানে রয়েছে। সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এক দশক পর এই মাইলফলক ছুঁয়েছে কোম্পানিটি। এর আগে এই মাইলফলকটি ২০১৪ সালের জুন ত্রৈমাসিকে অর্জিত হয়েছিল। তখন টাটা মোটরসের নিট প্রফিট ছিল ৫,৩৩০.৬ কোটি টাকা। তারপর TCS-এর নেট প্রফিট ছিল ৫,১৮৬.৬ কোটি টাকা এবং টাটা স্টিলের নেট প্রফিটের পরিমাণ ছিল ৪০০.৬ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন: ঘি-তেল নয়! ডিজেল দিয়ে পরোটা বানিয়ে বিক্রি করছেন ব্যক্তি, ভিডিও ভাইরাল হতেই….

কিভাবে ঘটল পরিবর্তন: এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি যে, বার্ষিক লাভের পরিপ্রেক্ষিতে, TCS এখনও টাটা গ্রুপের সবচেয়ে লাভজনক সংস্থা। ২০২৩-২৪ সালে এই সংস্থার মোট প্রফিট ছিল ৪৬,৬২৫ কোটি টাকা। এদিকে, এই সময়ের মধ্যে টাটা মোটরস ৩২,০৭৮ কোটি টাকা লাভ করেছে। টাটা মোটরসের প্রফিট বৃদ্ধির ফলে গ্রুপের হোল্ডিং কোম্পানি টাটা সন্সের আর্থিক শক্তিও বেড়েছে। উল্লেখ্য যে, মারুতি এবং হুন্ডাইয়ের পরে বিক্রির নিরিখে টাটা মোটরস দেশের তৃতীয় বৃহত্তম কোম্পানি হয়ে উঠেছে। কোম্পানি Punch, Nexon, Tiago এবং Altroz-এর মত মডেলগুলির সাথে একটি দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন করেছে। এদিকে, টাটা মোটরসের মিনি এসইউভি Punch দেশের সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া মডেল। Punch-এর বিক্রয় মার্চ মাসে ১৭,৫৪৭ ইউনিট এবং এপ্রিলে ১৯,১৫৮ ইউনিটে দাঁড়িয়েছে।

আরও পড়ুন: ব্যবহার করেন Android Smartphone? সচেতন না হলেই পড়বেন বিপদে, বিরাট সতর্কতা সরকারের

এমতাবস্থায়, বিশ্লেষকরা বলছেন দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম অটো কোম্পানি হতে পারে টাটা মোটরস। এর কারণ হচ্ছে কোম্পানিটি দ্রুত নতুন মডেল আনছে এবং ইলেকট্রিক গাড়ির বাজারে তাদের আধিপত্য বজায় রয়েছে। Punch-এর পেট্রোল, সিএনজি এবং বৈদ্যুতিক ভার্সন পাওয়া যায়। যেটির পেট্রোল ভার্সনের দাম ৬.১ লক্ষ টাকা (এক্স-শোরুম দিল্লি) থেকে শুরু হয়। অপরদিকে, ইলেকট্রিক ভার্সনের দাম ১১ লক্ষ টাকার বেশি। এই কোম্পানির মডেলগুলি বাজারে যত বেশি গ্রহণযোগ্য হচ্ছে, তত কোম্পানির আত্মবিশ্বাসও বাড়ছে। সংস্থাটি বিদ্যমান মডেলগুলিতে বৈদ্যুতিক ভার্সন যুক্ত করছে। এর পাশাপাশি, গ্রিন কারের বিষয়েও কাজ করছে এই সংস্থা।

Sayak Panda
Sayak Panda

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর কলেজ (অটোনমাস) থেকে মাস কমিউনিকেশন এবং সাংবাদিকতার পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কোর্স করার পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। ২ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর