টাইমলাইনভারত

দেখা মিলছে আশার আলো, করোনায় মৃত্যুর হার কম করা ওষুধকে মান্যতা দিল ভারত

বাংলহান্ট ডেস্কঃ করোনা চিকিৎসা নিয়ে সারা বিশ্ব তোলপাড়। এর মাঝেই আবার আশার আলো দেখল ভারত (india) , আরও একধাপ এগোল। ভারতীয় সংস্থা বায়োকনের তৈরি ওষুধ Itolizumab এবার করোনা রোগীর উপর প্রয়োগের অনুমতি দিল ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া।

Itolizumab আদতে সোরাসিসের ওষুধ। বাজারে সারাবছরই পাওয়া যায়। কিন্তু করোনা রোগীকে এই ওষুধ কেন? গবেষকরা বলছেন, করোনা ভাইরাস শরীরের দখলনিতে থাকে দ্রুত এবং দেহের ইমিউন সিস্টেম বা প্রতিরোধের দেওয়াল ভেঙে যেতে থাকে।

একে চিকিৎসা পরিভাষায় একে সাইটোকিন স্টর্ম বলে। একদল গবেষক দেখিয়ে আসছেন , সোরাসিসের এই ওষুধ শরীরের প্রতিরোধ কাঠামোর এই ধ্বংস রুখে দিতে পারে এই ওষুধ।

তবে, চিকিৎসকরা এই ওষুধ মৃদু সংক্রমণের ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারবেন না। শুধু আশঙ্কাজনক অবস্থায় থাকা রোগীদের ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পর্যবেক্ষণে থাকা অবস্থায় এই ওষুধ ব্যবহার করা যেতে পারে। রোগীর অক্সিজেন সাপোর্ট থাকলে এই ওষুধ ব্যবহারের কথা ভাবতে পারবেন চিকিৎসকরা।

বায়োকনের এই Itolizumab-এর মূল পেটেন্টটি কিউবার সেন্টার ফর মলিকিউলার ইমিওনোলজিতে তৈরি। ২০০৬ সালে এই ওষুধটি তৈরি হয়। ২০১৩ সাল থেকে ওষুধটি ব্যবহার চলছে।

ডিসিজিআইয়ের মতে, এই ইঞ্জেকশনটি গুরুতর করোনার রোগীদের চিকিত্সার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। সন্তোষজনক ফলাফল ক্লোনিকাল পরীক্ষার পরে করোনার রোগীদের উপর প্রয়োগ করা হয়েছে। এই ইনজেকশনগুলি বেশ কয়েক বছর ধরে সিরোসিসযুক্ত রোগীদের চিকিত্সার জন্য ব্যবহৃত হয়।

কিরণ শ বলেছেন যে, এই পরিস্থিতিতে জীবন বাঁচাতে সঠিক চিকিত্সা করা দরকার। আমরা আগামী কয়েক দিনের মধ্যে মিলিয়ন চিহ্ন স্পর্শ করতে যাচ্ছি। এই মুহুর্তে আমাদের সামনে বড় প্রশ্ন হ’ল সংক্রমণের হার বাড়লে আমরা কী মৃত্যুর হার কমিয়ে আনতে পারি?

এই জাতীয় সময়ে, টলিজুমাব ওষুধ খুব কার্যকর প্রমাণ করতে পারে। তবে এটি এখনও বড় আকারে চেষ্টা করা হয়নি। মাঝারি থেকে গুরুতর রোগীদের জন্য এই ওষুধটি ব্যবহারের জন্য ডিসিজিআই অনুমতি দিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের স্বাস্থ্যসেবা খাতে আরও বেশি বিনিয়োগ করতে হবে। অন্যান্য অঞ্চলের মতো এই অঞ্চলেও প্রণোদন করা দরকার। এক সময় স্বাস্থ্য খাতকে একইভাবে করা যেতে পারে যেমন আইটি খাতকে মনোযোগ দিয়ে বড় করা হয়েছে।

Back to top button