সোশ্যাল মিডিয়ায় এত গালি খান, কেমন লাগে? এবার মুখ খুললেন কুণাল ঘোষ, বললেন…

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ তৃণমূল কংগ্রেসের ‘পুরনো সৈনিক’দের মধ্যে একজন তিনি। একাধিক ইস্যুতে দলের স্বপক্ষে সুর চড়াতে দেখা যায় কুণাল ঘোষকে (Kunal Ghosh)। জোড়াফুল শিবিরের যে সকল নেতারা কঠোরভাবে শুভেন্দু অধিকারীকে ‘নিশানা’ করেন তাঁদের মধ্যে একজন কুণাল। সমাজমাধ্যমেও বেশ সক্রিয় এই তৃণমূল (TMC) নেতা। অনুগামীদের সমর্থনের পাশাপাশি বহু নেটিজেনের গালি বর্ষণের সম্মুখীনও হতে হয় তাঁকে।

   

মাঠে-ময়দানে কুণাল ঘোষের জনপ্রিয়তা নিয়ে সংশয় থাকলেও সোশ্যালে (Social Media) তাঁর উপস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন তোলা যায় না। তাঁর ভিডিও কিংবা পোস্টে যেমন প্রচুর লাইক, শেয়ার পড়ে, তেমনই কমেন্ট সেকশন খুললে দেখা যায় অশ্লীল নানান শব্দ। এই বিষয়ে সম্প্রতি প্রশ্ন করা হয়েছিল তৃণমূলের (Trinamool Congress) প্রাক্তন মুখপাত্রকে। জবাবে কুণাল বলেন, ‘বলুন না যে গালাগাল দেয়।… আমি ধর্তব্যের মধ্যেই রাখি না’।

জনপ্রিয় এক সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তৃণমূল নেতা বলেন, ‘দ্বিতীয় ইনিংসে আমার ফ্রেন্ডলিস্টে বেশি কারা ছিলেন, যারা আমাকে অপছন্দ করে, আমার প্রতি অ্যাগ্রেসিভ…। এরপর থেকে আমি দলের অন্দরে যত বেশি অ্যাক্টিভ হয়েছি, ততই সেই মানুষগুলো আমার প্রতি হতাশ হয়েছেন’। কুণালের কথায়, তাঁরা প্রথমে ভেবেছিলেন তিনি হয়তো তৃণমূল-বিরোধী। তবে তাঁর অবস্থান পরিষ্কার হতেই, সেই মানুষগুলো সমালোচক হয়ে যান।

আরও পড়ুনঃ ‘মা বোনেদের বুকে…’, ১৩ বছর ধরে কেন রং খেলার সাহস হয়নি? জানালেন সন্দেশখালির BJP প্রার্থী রেখা

এখানেই না থেমে তৃণমূল নেতা দাবি করেন, মোট কমেন্টের ৩০-৪০ শতাংশ হয়তো বিপক্ষে থাকে। পাশাপাশি লাইকের সংখ্যার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘কতগুলো লাইক পড়ছে সেটাও কিন্তু নজর রাখবেন। যারা সমর্থন করে তাঁরাই কিন্তু লাইক করেন। যে সমর্থন করে সে-ই শেয়ার করে। একটা বিতর্কিত জায়গা থেকে আমি এসেছি। সোশ্যাল মিডিয়ায় আমার সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব হল আপনি আমায় সমর্থন করুন, কমেন্ট সেকশনে গিয়ে গালি দিন। তবু সার্চ করে কুণাল ঘোষের বক্তব্য জানতে হবে, এটাই আমার সাফল্য’।

kunal ghosh

কুণাল জানান, আমি এবং আমার সহকর্মী মিলে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর, তাঁদের জন্য কাজ করার চেষ্টা করি। যদি শুধু সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত থাকতেন তাহলে এটা সম্ভব হতো না, দাবি করেন তিনি। প্রসঙ্গত, সমাজমাধ্যম খুললেই কুণাল ঘোষকে নিয়ে নানান পোস্ট, চর্চা-আলোচনা চোখে পড়ে। কিছু মানুষ অশ্লীল কথা বললেও, বহু মানুষ যে তৃণমূল নেতাকে সমর্থনও করেন এটা সত্যিই অস্বীকার করার উপায় নেই।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর