বছর শুরুতেই পরপর তিন দিন বন্ধ থাকতে পারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস-কাছারি! কী কারণে ফের ছুটি?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সেই পুজোর আগে থেকে একাধিক ছুটি পাচ্ছেন সরকারি কর্মীরা। বছর শেষ হতে চলেছে তাও ছুটি শেষ হচ্ছে না। সামনেই বড়দিনের ছুটি। ওদিকে আসন্ন জানুয়ারি মাসে টানা তিন দিন বন্ধ (Holiday) থাকতে পারে রাজ্যের সমস্ত স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি অফিস। যদিও এ কোনও সরকারি ছুটি নয়। ধর্মীয় উৎসব বা রাজনৈতিক দলের ডাকা হর্তালের কারণেও এই ছুটি নয়। তাহলে?

   

মূলত মহার্ঘ ভাতা ডিএ এর দাবিতে এবার ত্রিমুখী আক্রমণের কৌশল নিতে চলেছে সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ (Sangrami Joutha Mancha)। দীর্ঘ দিন ধরে ডিএ (DA) ইস্যুতে উত্তাল রাজ্য। কেন্দ্রীয় হারে মহার্ঘ ভাতার দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে রাজ্য সরকারি কর্মীরা। সুপ্রিম কোর্টে চলছে মামলা। কবে সেই সমস্যার নিস্পত্তি হবে জানা নেই। তিনশোরও বেশি দিন ধরে আন্দোলন করে চলেছে বাংলার সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ। তাদের দাবি তাদের বকেয়া ডিএ মেটানো হোক। তবে দীর্ঘ আন্দোলন, বিক্ষোভের পরেও রাজ্য সরকার এখনও পর্যন্ত কোনো আশানুরূপ পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

তাই এবার বর্ষশেষে জোরালো আন্দোলনে নামছে সরকারি কর্মীরা। মহার্ঘ ভাতার দাবিতে একই সঙ্গে ধর্ণা, মিছিল ও ধর্মঘট মূলত ত্রিমুখী আক্রমণের কৌশল নিচ্ছেন তারা। ওদিকে নতুন বছরে বৃহত্তর ধর্মঘট কর্মসূচিও রয়েছে সংগ্রামী যৌথ মঞ্চের। তাদের এই ধর্মঘটের জেরেই বন্ধ (Holiday) রাজ্যের সমস্ত স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি অফিস বন্ধ থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: বহু প্রতীক্ষার পর DA বাড়ল রাজ্য সরকারি কর্মীদের! কত শতাংশ? বিজ্ঞপ্তি জারি করল অর্থ দফতর

আগামী ১৯ ডিসেম্বর থেকে ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত নবান্নের (Nabanna) সামনে অবস্থান কর্মসূচী রয়েছে রাজ্য সরকারি কর্মীদের। উৎসবের মরসুমে জোড়ালো আন্দোলনের সাক্ষী থাকতে চলেছে বাংলা। অন্যদিকে নতুন বছরে অর্থাৎ ২০২৪ সালের জানুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহেও বৃহত্তর ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ। সেই সময় একটানা ৭২ ঘন্টা ধর্মঘট চলবে। এই তিন দিন রাজ্যের সমস্ত স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি অফিস বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে যৌথ মঞ্চ।

mamata nabanna

প্রসঙ্গত কেন্দ্র সরকারি কর্মীরা বর্তমানে ৪৬ শতাংশ হারে মহার্ঘ ভাতা পান। আর সেখানে রাজ্যের সরকারি কর্মীরা পায় ৬ শতাংশ। অন্যান্য রাজ্যের মহার্ঘ ভাতাও এ রাজ্যের তুলনায় অনেকটা বেশি। এর আগেও বেশ কিছুবার সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ কর্মবিরতির ডাক দিয়েছিল। তবে আন্দোলন প্রদর্শন করলেও তা কোনোভাবেই সফল হয়নি। রাজ্য সরকার সেদিকে দৃষ্টিপাতই করেনি। এবার ফের বছর শেষে কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে সংগ্রামী যৌথ মঞ্চ।