টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

প্রকাশ্যে ব্যাঙ্কে টাকা রেখেছিলেন অনুব্রত, তখন আয়কর দফতর কোথায় ছিল? পাল্টা প্রশ্ন দেবাংশুর

বাংলাহান্ট ডেস্ক : পার্থ-অর্পিতাকাণ্ডে টাকার পাহাড় দেখেছে বঙ্গবাসী। এরপর অনুব্রত-র (Anubrata Mandal) পালা। জানা যাচ্ছে কেষ্ট ওঁ তাঁর আত্মীয়দের কাছ থেকে প্রায় ১৭ কোটি ফিক্সড ডিপোজিট (Fixed Deposit) বাজেয়াপ্ত করেছে সিবিআই (CBI)। এই প্রসঙ্গে এবার প্রতিক্রিয়া দিলেন তৃণমূলের দেবাংশু ভট্টাচার্য (Debangshu Bhattacharya)।

এদিন দেবাংশু বলেন, ‘সূত্রের কোনও খবরে আমি কোনও মন্তব্য করব না। তাঁদের কত কোম্পানি রয়েছে, সেগুলি যতক্ষণ না সামনে প্রকাশ্যে আসবে, আমি কিছুই বলব না। ভিতরের খবরের উপরে আমরা একে বারেই কিছু বলতে রাজি নই। তবে এইটুকু শুধু বলতে পারি, যদি ফিক্স ডিপোজিট কিছু থেকে থাকে, তাহলে এতটাকা তিনি সেটা প্রকাশ্যেই রেখেছিলেন, ব্যাঙ্কিং সিস্টেমের মধ্যেই রেখেছিলেন। আর যদি সেই সিস্টেমের মধ্যেই রেখে থাকেন, তাহলে আয়কর দফতর তো সেটা এতদিন ধরে দেখেছে চোখের সামনে। আয়কর দফতর তো আর রাজ্য সরকারের নয়।’

তিনি আরও বলেন ‘এখন বিষয়টা হচ্ছে, নিশ্চয়ই তার ব্যবসা ধীরে ধীরে বেড়ে উঠেছে। সেই জন্য আয়কর দফতর এতদিন কিছুই বলেনি। সেটা সিবিআই-কে ভাঙতে হল, ইনকাম ট্যাক্স এতদিন কী করছিল ? আমার বক্তব্যের জায়গা হচ্ছে এসব বলে কোনও লাভ নেই। তদন্ত করুন কিছু যদি একটা প্রমাণ সহ বেরিয়ে আসে, তারপরে আমরা দলের তরফ থেকে যা জানানোর সেটা জানাবো।’ তবে কেষ্টর এত টাকার উৎস কী ? এই প্রশ্নের উত্তরে দেবাংশু বলেন, ‘জমিদার পরিবারের ছেলে ছিলেন অনুব্রত।’

সিবিআই সূত্রে জানা যাচ্ছে, অনুব্রতর কাছ থেকে প্রায় ১৭ কোটি বাজেয়াপ্ত করেছে সিবিআই। প্রায় ১৬ কোটি ৯৭ লক্ষ টাকার ফিক্সড ডিপোজিট বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। অনুব্রত-সহ ঘনিষ্ঠদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টেও পাওয়া গেছে কোটি কোটি টাকার হদিশ। কয়েকদিন আগেই পার্থ ঘনিষ্ঠ অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে কোটি কোটি টাকা উদ্ধার হওয়া নিয়ে তোলপাড় হয়েছিল গোটা দেশ। ‘ওই টাকা আমার নয়’, বলে জানিয়েছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। আর সেই ঘটনার পর প্রকাশ্যে এল অনুব্রত-র টাকা বাজেয়াপ্তকাণ্ড।

Related Articles