১৪ বছরের কেরিয়ার, আজও নায়িকা! দেখুন তো ফ্রক পরা এই খুদেকে চিনতে পারেন কি না

বাংলা হান্ট ডেস্ক : শৈশবের স্মৃতি হাতড়াতে কার না ভালো লাগে! ফেলে আসা দিনগুলোর কথা মনে করে নস্টালজিয়ায় ভাসা তো কমবেশি আমাদের সকলের স্বভাব‌। এই যেমন সদ্যই এক টেলি অভিনেত্রী ভাগ করে নিয়েছেন তার ছোটবেলার কিছু স্মৃতি। সমাজ মাধ্যমের পাতায় পোস্ট করেছেন তার খুদেবেলার কিছু ছবি। ফুল ফুল ছাপা কাঁধ কাটা ফ্রক, চোখে প্রাণোচ্ছ্বল হাসি আর ছোট চুলে তাকে চেনাই দায়।

অনেকে তো ভাবতেই পারছেনা যে, এই খুদেই বিগত কয়েক বছর ধরে টেলিভিশনের পর্দা মাতিয়ে রেখেছেন। নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে যে কেরিয়ার তিনি শুরু করেছিলেন তা আজও অব্যাহত। যেখানে আজকাল দু একটা সিরিয়ালের পর কাজ পাওয়াই দুষ্কর হয়ে ওঠে সেখানে গত ১৪ বছর ধরে লিড রোলে কাজ করে আসছেন তিনি। বলুন দেখি কে এই খুদে?

   

চলুন আরেকটু হিন্টস দিই আপনাদের। কর্মজীবন এবং ব্যক্তিগত জীবন দুই ক্ষেত্রেই চর্চায় থেকেছেন নায়িকা। ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন এক নামী সঙ্গীত তারকাকে। তবে খুব বেশিদিন সেই বিয়ে টেকেনি। ডিভোর্সের পর দ্বিতীয়বার প্রেমে পড়েন নায়িকা। তিনি আবার পেশায় একজন পরিচালক। এখন তাদের সুখী গৃহকোণ। দেখতে দেখতে দুটো বছরও পার করে ফেললেন নায়িকা। এবার বুঝলেন কার কথা বলছি আমরা?

আরও পড়ুন : বাপ্পি লাহিড়ীর নাতিকে নিয়ে বড় ঘোষণা রাখীর, নিন্দার ঝড় সোশ্যাল মিডিয়ায়

আজ আমরা বলছি জি বাংলার (Zee Bangla) চর্চিত ধারাবাহিক ‘কার কাছে কই মনের কথা’র শিমুল ওরফে মানালি মণীষা দে-র (Manali Dey) কথা। ভাইরাল এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে একটা খাটের উপর বসে রয়েছেন তিনি। যদিও নিজের শৈশবকে দেখে কোনও মন্তব্যই করেননি মানালি। ছবির ক্যাপশনে লজ্জায় মুখ ঢাকার ইমোজি শেয়ার করেছেন দুটো। তবে শব্দ খরচ তো করছেন তার ভক্তরা।

আরও পড়ুন : সংসার চালাতে লোকের বাড়ি কাজ করতো মা! ‘দাদাগিরি’র মঞ্চে কেঁদেই ফেললেন ‘সৃজন’ রুবেল

 

কমেন্ট বক্সে জমা হয়েছে ভক্তদের ভিড়। দিনকয়েক আগেই প্রসেনজিৎ-র জন্মদিনেও নিজের মেয়েবেলার একটি মিষ্টি ছবি শেয়ার করেছিলেন মানালি। সেই ছবিতে দেখা গেছিল, বুম্বাদা-র কোলে হেলান দিয়ে বসে আছেন তিনি। সেবারও ভক্তরা তার সেই ছবি দেখে বেশ উৎসাহী হয়ে পড়েছিল। উল্লেখ্য, টেলিভিশনের পর্দায় মানালীর প্রথম কাজ ছিল ‘বউ কথা কও’। নিখিল-মৌরীর জুটিকে দারুণ ভালোবাসা দিয়েছিল ভক্তরা।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর