পাখির চোখ অরুণাচল, চিনকে শিক্ষা দিতে মহা প্ল্যান ভারতের! বিনিয়োগ হচ্ছে ১.৪ লক্ষ কোটি টাকা

বাংলা হান্ট ডেস্ক : চিরাচরিত শক্তির বিকল্পের খোঁজে সরকার। বিশেষ করে জলবিদ্যুৎকে (Hydropower Project) কাজে লাগিয়ে শক্তি উৎপাদন করার প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে অরুণাচল প্রদেশে (Arunachal Pradesh)। কীভাবে এই সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে দেশের মানুষের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া যায় তার রাস্তাও খুঁজে নিয়েছে পেমা খাণ্ডুর সরকার। আর এবার তাতে হাত লাগালো কেন্দ্র (Central Government)।

তৈরি হবে নতুন কর্মসংস্থান 

   

একথা সকলেই জানি যে জলবিদ্যুৎ পুনর্নবীকরণ শক্তির অন্যতম উৎস। এর মাধ্যমে অরুণাচল প্রদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং পরিকাঠামোর উন্নতিরও বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে রাজ্যটি। কারণ এতে যেমন দেশের মানুষ উপকৃত হবেন তেমন সেখানকার স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্যেও তৈরি হবে কর্মসংস্থান। পাশাপাশি স্থানীয়দের ব্যবসার সুযোগও বাড়বে‌।

মোট ১.৪ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে কেন্দ্র

সম্প্রতি খবর মিলেছে, মোট ১৩ টি জলবিদ্যুৎ প্রকল্পে কাজ শুরু হবে অরুনাচল প্রদেশে। যেখান থেকে ১৩ হাজার মেগাওয়াটের শক্তি উৎপন্ন হবে বলে দাবি। এই প্রোজেক্টের লক্ষ্য, জাতীয় গ্রিডে ১৩ হাজার মেগাওয়াটের শক্তি যুক্ত করা। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎমন্ত্রী আর.কে. সিং জানিয়েছেন, এই গোটা প্রোজেক্টে মোট ১.৪ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে কেন্দ্র।

1 qdqggrs0bgdhu 5hbkmqng

আরও পড়ুন : কাটমানির খেল, রডের বদলে বাঁশ দিয়েই চলছে ঢালাই, জানতে পেরে এলাকাবাসী যা করল…

সম্ভাব্য জলবিদ্যুৎ-র মাত্র ৩৫ শতাংশ ব্যবহার করছি আমরা 

পাশাপাশি এইদিন তিনি আরও বলেন, দেশের বর্তমান জলবিদ্যুৎ ক্ষমতা প্রায় ৪৭ হাজার মেগাওয়াট, যা আমাদের দেশে উপলব্ধ জলবিদ্যুৎ সম্ভাবনার মাত্র ৩৫%। অর্থাৎ আমাদের দেশ চাইলে অনেক বেশি জলবিদ্যুৎ উৎপাদন করে বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে পারে। এইদিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আরও মনে করিয়ে দেন, আজকের দিনে দাঁড়িয়ে উন্নত দেশগুলি তাদের সম্ভাবনার প্রায় ৭০-৮০% জলবিদ্যুৎ ব্যবহার করছে।

আরও পড়ুন : সুরাতের কারখানায় বিধ্বংসী আগুন, জীবন্ত পুড়ে ছাই শ্রমিকরা! ধ্বংসস্তুপ থেকে উদ্ধার ৭ জনের দেহ

দিনদিন বাড়ছে বিদ্যুতের চাহিদা 

আর.কে. সিং বলেন, ভারতে দিন দিন বিদ্যুতের চাহিদা বাড়ছে এবং এর জন্য দ্রুত গতিতে বিদ্যুতের উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে।এইদিন তিনি আরও জানান, যেখানে ২০১৩ সালে দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ চাহিদা ছিল প্রায় ১.৩৫ লক্ষ মেগাওয়াট, আজ সেটা দাঁড়িয়েছে ২.৩১ লক্ষ মেগাওয়াটে। আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে এই পরিসংখ্যান দ্বিগুণ হয়ে যাবে বলে বিশেষজ্ঞদের অনুমান।

আরও পড়ুন : মমতার ভাবনায় থিম সং গাইছেন অরিজিৎ, থাকছেন না শাহরুখ! এবার বড় চমক কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে

প্রতিবেশী দেশ নেপাল ও বাংলাদেশকেও বিদ্যুৎ সরবরাহ করে থাকে

আর.কে. সিং-র সংযোজন, ‘আমাদের মোট বিদ্যুৎ ব্যবহার আজ ১৬০০ বিলিয়ন ইউনিট, যা আগামি এক দশকে প্রায় ৩০০০ বিলিয়ন ইউনিটে পরিণত হবে। যাইহোক, এখনও, আমাদের বিদ্যুৎ খরচ উন্নত দেশগুলির তুলনায় কম। ইউরোপের মাথাপিছু বিদ্যুতের ব্যবহার আমাদের আজকের তুলনায় প্রায় তিনগুণ। তাই আমাদের চ্যালেঞ্জ হল আমাদের বিদ্যুতের চাহিদা বৃদ্ধির মতো দ্রুত শক্তির ক্ষমতা যোগ করা।’ প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আজ ভারত কেবল নিজের দেশের বিদ্যুৎ চাহিদা মেটায়না, সেই সাথে দুই প্রতিবেশী দেশ নেপাল ও বাংলাদেশকেও বিদ্যুৎ সরবরাহ করে থাকে।