অপরিচিত মহিলাকে ডার্লিং সম্বোধন করলে কী সাজা হতে পারে? বিরাট রায় দিল কলকাতা হাইকোর্ট

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ কোনও অপরিচিত মহিলাকে ডার্লিং (Darling) সম্বোধন আইনত অপরাধ। এর সঙ্গে যৌন আবেদনমূলক একটা ব্যাপার জড়িত থাকে। শুক্রবার এক মামলার রায় দিতে গিয়ে এমনই জানিয়েছে কলকাতা হাই কোর্ট (Calcutta High Court)। কোনও ব্যক্তি কখনই অচেনা কোনও মহিলাকে ডার্লিং বলে সম্বোধন করতে পারেন না, এটা অমার্জিত এবং ফৌজদারি অপরাধ। এক্ষেত্রে সেকশন ৩৫৪এ(আই) ধারা আরোপিত হতে পারে।

   

বার অ্য়ান্ড বেঞ্চের প্রতিবেদন অনুসারে জানা গিয়েছে, গত বছর দুর্গাপুজোর সময় এক মহিলা কনস্টেবলকে ‘কেয়া ডার্লিং, চালান করনে আই হ্যায় কেয়া?’ বলে মন্তব্য করেন এক ব্যক্তি। এরপরই দায়ের হয় অভিযোগ। ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলাও দায়ের হয়। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

আদালত অভিযুক্ত ব্যক্তিকে তিন মাসের সাধারণ কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে। পাশাপাশি তার উপর যে দুটি ধারা লাগু করা হয়েছে তার প্রত্যেকটির জন্য ওই ব্যক্তিকে ৫০০ টাকা করে জরিমানার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে বার অ্য়ান্ড বেঞ্চের প্রতিবেদন অনুসারে জানা গিয়েছে।

শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের একক বেঞ্চের বিচারপতি জয় সেনগুপ্তর এজলাসে এই মামলার শুনানি ছিল। সেখানেই বিচারপতি সেনগুপ্ত সেকশন ৩৫৪এ-র কথা উল্লেখ করে বলেন, এক অচেনা মহিলাকে তিনি পুলিশ কনস্টেবল হোন অথবা নাই হোন সেটা বিবেচ্য নয়, রাস্তায় তাকে এইভাবে ডাকা, বা তার প্ৰতি এমন শব্দ প্রয়োগ কখনই উচিৎ নয়। পাশাপাশি ওই ব্যক্তি মদ্যপ অবস্থায় থাকুন অথবা নাই থাকুন। একজনের অপিরিচিত মহিলার কাছে এই ধরনের ডার্লিং শব্দটির ব্যবহার যৌন কটাক্ষমূলক শব্দ। মন্তব্য বিচারপতির।

high court

আরও পড়ুন: সিনেদুনিয়ায় দেখা নেই, তবুও কোটিপতি! BJP প্রার্থী হিরণের সম্পত্তির পরিমাণ জানলে ভিরমি খাবেন

বার ও বেঞ্চের প্রতিবেদন অনুসারে, অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন বলে কোনও প্রমাণ মেলেনি। এই বিষয়ে বিচারপতির পর্যবেক্ষণ, এই ধরনের মন্তব্য যদি একেবারে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে করা হয়ে থাকে তবে এক্ষেত্রে অপরাধের গুরুত্ব অনেকাংশে বেড়ে যায়।

Sharmi Dhar
Sharmi Dhar

শর্মি ধর, বাংলা হান্ট এর রাজনৈতিক কনটেন্ট রাইটার। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৩ বছর ধরে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত ।

সম্পর্কিত খবর