অবশেষে মিললো সাফল্য! এক ঘন্টার মধ্যে বেরিয়ে এলেন ৩৫ জন শ্রমিক, স্বস্তি দেশে

বাংলা হান্ট ডেস্ক : অপেক্ষার সতেরো দিন হয়ত সত্যিই শেষ হতে চলেছে এই মঙ্গলবার৷ দেশ বিদেশের একাধিক সংস্থা, কয়েকশো মানুষের নিরলস পরিশ্রম এবং ১৪০ কোটি মানুষের প্রার্থনা বোধহয় বিফলে যায়নি। মাটি থেকে ৬০ মিটার দূরে থাকা শ্রমিকদের কাছে সত্যিই পৌঁছাতে পারলো উদ্ধারকারী দল। এবার একে একে বের করা হচ্ছে আটকে থাকা শ্রমিকদের।

   

গত ১২ নভেম্বর ভোরে উত্তরকাশীর (Uttarkashi) সিল্কিয়ারা সুড়ঙ্গে ধস নামে। যার ফলে ভেতরে আটকা পড়েন মোট ৪১ জন শ্রমিক। দীর্ঘ ১৭ দিন ধরে নানাভাবে তাদের উদ্ধারেয চেষ্টা করা হচ্ছিল। তবে কোনোভাবেই শ্রমিকদের কাছে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছিলনা। দু’বার তো শ্রমিকদের খুব কাছে পৌঁছেও সামনে আসে কেবল ব্যর্থতা। ধ্বংসস্তূপের ভিতরের লোহার কাঠামোয় ধাক্কা খেয়ে ভেঙে যায় আমেরিকান খননযন্ত্র।

 

তবে কোনোকিছুতেই হাল ছেড়ে দেননি উদ্ধারকারী ত্রাতারা। আবারও নতুন উদ্যমে নতুনভাবে শুরু হয় উদ্ধারের কাজ। সেই সাথে সাহস জোগাতে থাকেন সুড়ঙ্গের মধ্যে আটকে থাকা শ্রমিকদের সাথেও। প্রশাসনের তরফ থেকেও শ্রমিকদের সঙ্গে অনবরত যোগাযোগ রাখা হচ্ছিল। দেওয়া হচ্ছিল ডাক্তারি পরামর্শ, পৌঁছানো হচ্ছিল খাবার, জল এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও ক্রমাগত খোঁজ নিয়েছেন।

638368007499384358

এরপর গত মঙ্গলবার ক্যামেরা পাঠিয়ে রেকর্ড করা হয় আটকে থাকা শ্রমিকদের প্রথম ভিডিও। দেখা হয় তারা সবাই ঠিক আছেন কি না! এবং সেই সাথে শুরু হয়েছিল দুই ভাবে খোঁড়াখুঁড়ির কাজ। খননযন্ত্রের টুকরো গুলি বের করে সেখানে শুরু হয় ম্যানুয়াল ড্রিলিং। এই পদ্ধতিকে বলা হয় ব়্যাট হোল মাইনিং। অন্যদিকে উলম্ব ভাবেও খননের কাজ শুরু হয়েছিল। যেখানে ৮৬ মিটারের মধ্যে মঙ্গলবার সকালের মধ্যেই খোঁড়া হয়ে গিয়েছিল ৪২ মিটার।

 

 

এবং অবশেষে মঙ্গলবার রাতে মিললো সাফল্য। প্রতিবেদন লেখার সময় অবধি প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত মোট ৩৫ জন শ্রমিককে বার করে ফেলেছে উদ্ধারকারী দল। এরপর সেখান থেকে তাদের নিয়ে যাওয়া হবে জেলা হাসপাতালে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ধামী। আশা করা হচ্ছে আর মিনিট কয়েকের মধ্যেই সবাইকেই বাইরে বের করে আনা হবে।

সম্পর্কিত খবর