নুসরতের পর ফ্ল্যাট প্রতারণা মামলায় ED-র নজরে আরও এক নামি অভিনেত্রী, পাঠানো হল সমন

বাংলা হান্ট ডেস্ক : প্রতারণার অভিযোগে অভিনেত্রী তথা তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহানকে তলব করেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (Nusrat Jahan summoned by ED)। আর এবার খবর, সাংসদ অভিনেত্রীর পাশাপাশি আরও এক অভিনেত্রী ইডি-র ব়্যাডারে। সূত্রের খবর, নুসরত এবং রাকেশ সিং-র পাশাপাশি অভিনেত্রী রূপলেখাও ছিলেন ওই কোম্পানির ডিরেক্টর পদে।

সূত্রের খবর, ফ্ল্যাট দেওয়ার নাম করে বাজার থেকে প্রচুর টাকা তুলেছে সংশ্লিষ্ট সংস্থা। তদন্তকারীদের দাবি, ওই কোম্পানি বাজার থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা তুলে নয়ছয় করেছে। ইডির দাবি, যে কোম্পানিটির বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকা প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে তার ডিরেক্টর ছিলেন তৃণমূল সাংসদ তথা অভিনেত্রী নুসরত।

   

গত সোমবার বিজেপি নেতা শঙ্কুদেব পান্ডাকে সাথে নিয়ে ইডি অফিসে পৌঁছান একাধিক অবসরপ্রাপ্ত ব্যাঙ্ককর্মী। অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের অভিযোগ, ফ্ল্যাট দেওয়ার নাম করে তাদের থেকে প্রচুর টাকা তোলা হয়েছে। যদিও দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও ফ্ল্যাট তারা পাননি। জিজ্ঞাসাবাদ করতে গেলে ক্রমাগত টালবাহানা চলতে থাকে এবং অবশেষে আর কোনও উপায় না দেখে আইনের দ্বারস্থ হয়েছেন তারা।

আরও পড়ুন : ED-র সমন নিয়ে মুখ খুললেন নুসরত, পাল্টা প্রশ্ন করতেই বৈঠক ছেড়ে উঠে গেলেন সাংসদ অভিনেত্রী

এই অভিযোগের ভিত্তিতেই তদন্ত শুরু করেন কলকাতা পুলিশ এবং ইডির গোয়েন্দারা। সূত্রের খবর, এর আগেও নাকি এই মামলায় আলিপুর আদালত থেকে শমন গেছিল নুসরতের কাছে। অভিযোগ, আদালতে হাজিরা দিতে পৌঁছাননি এই সাংসদ অভিনেত্রী। তবে এর আগে একবার ইডি-র ডাক পৌঁছাতেই তড়িঘড়ি প্রেস মিট ডাকেন তিনি।

আরও পড়ুন : তিনটে বিয়ের গল্প না থাকলে …’, TRP কমতেই দর্শকদের উপর ক্ষোভ ঝাড়লেন সোনালি

এবং সাংবাদিক বৈঠকে জানান, অভিযোগ যখন করা হয়েছে, তার অনেক আগেই তিনি সংশ্লিষ্ট কোম্পানি বা সংস্থা ছেড়ে দিয়েছিলেন। তিনি আরও বলেন, ঐ কোম্পানি থেকে কয়েক কোটি টাকা লোন হিসেবে নিলেও তা তিনি কড়ায় গন্ডায় মিটিয়ে দিয়েছেন। এমতাবস্থায় তাকে প্রশ্ন করা হয়, ব্যাঙ্ক থেকে লোন না নিয়ে কোম্পানি থেকে কেন নিলেন? মিডিয়া বলছে, তিনি নাকি এই প্রশ্নের কোন উত্তর না দিয়েই বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যান।

আরও পড়ুন : মাত্র ৫ মাসেই শেষ! বন্ধের মুখে জি বাংলার এই জনপ্রিয় সিরিয়াল, রইল শেষ সম্প্রচারের দিনক্ষণ

nusrat jahan (3)

এরপর গত সোমবার তাকে ইডি-র নোটিশ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ব্যস্ততার কারণে এখনও মেল চেক করেননি। তবে ইডি ডাকলে অবশ্যই যাবেন এবং তদন্তে সবরকম সাহায্য করবেন। এদিকে বেলঘরিয়ার রূপলেখার ফ্ল্যাট আছে একটি। সেখান থেকে সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, এইমুহুর্তে তিনি এবং রাকেশ অন্য একটি সংস্থার ডিরেক্টর।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর