fbpx
টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

তৃণমূল কে এবার বড়সড় টেক্কা দিতে চলেছে AIMIM, উত্তরবঙ্গে শোরগোল

বাংলা হান্ট ডেস্ক : সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা উপনির্বাচনেই শাসক শিবির হ্যাটট্রিক ফলাফল করেছে, যা রীতিমতো চমকে দিয়েছে গোটা বাংলাকে। বিজেপির তো একেবারে চক্ষু চড়ক গাছ। কালিয়াগঞ্জ খড়্গপুর এবং করিমপুরে তিনটি কেন্দ্রেই বিজেপির থেকে অনেক বেশি ভোটে জিতে গিয়েছে তৃণমূল। যে কালিয়াগঞ্জে লোকসভা ভোটে তৃণমূল একেবারে বাজে ভাবেই বিজেপির কাছে পরাস্ত হয়েছিল সেই কালিয়াগঞ্জ এবার তৃণমূলের দখলে। তবে এই নিয়ে কিন্তু বসে থাকলে চলবে না, কারণ ইতিমধ্যেই বিজেপিকে চাপে ফেলতে মরিয়া হয়ে উঠেছে অল ইন্ডিয়া ইত্তেহাদুল মুসলেমিন বা মিম।

তাই এবার হেমতাবাদ হাই মাদ্রাসার পরিচালন কমিটির ভোটে প্রার্থী দিল মিম। এমনিতেই আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় প্রার্থী দেওয়ার কথা জানিয়েছে মিম। তবে শুধুমাত্র পরিচালন সমিতির ভোট বলে লঘু করে দেখতে নারাজ রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তাই তো অনেকেই তাঁকে দিদি কে ইতিমধ্যেই ওরা বিজেপির এই বলে সতর্কও করে দিয়েছে।

হেমতাবাদের ছটি হাই মাদ্রাসার পরিচালন সমিতিতে এখনও অবধি বিজেপির তরফে কোনও প্রার্থী দেওয়া হয়নি তাই হেমতাবাদ ছেয়ে গিয়েছে পোস্টারে-‘ইনতেজার অব খতম, মিশন ওয়েস্ট বেঙ্গল।’ তবে যেহেতু হেমতাবাদ একটি সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকা তাই কিছুটা হলেও হাই মাদ্রাসায় যদি কোনও ভাবেই মিম ভালো ফলাফল করতে পারে তা হলে তৃণমূলের ভোট বাক্সে ভাটা পড়তে পারে।

যদিও মিম বরাবরই বিজেপির বিরুদ্ধে কিন্তু ইতিমধ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংখ্যালঘু বলে কটাক্ষ করেছেন, তবে যদি মিম একবার খাতা খুলে ফেলে সে ক্ষেত্রে সংখ্যালঘুরাও বই মুখ হয়ে যেতে পারে, এমনটাও আশা করছেন কেউ কেউ। অন্য দিকে আবার হাই মাদ্রাসায় মিম প্রার্থী দেওয়ার জন্য তৃণমূলের ভিতরের লোকজনেরাই নাকি এই কাণ্ড করেছেন বলে দাবি তুলেছে সিপিএম।

অনেকেই আবার বলছেন রাজ্যে প্রভাব ফেলতেই পারে। তবে তা যদি হয় তা হলে বাংলার রাজনীতির ভবিতব্য যে পাল্টে যাবে তা এক প্রকার বলাই যায়। কারণ গত দেড় মাস ধরেই যেভাবে মিমকে নিয়ে বাংলার রাজনীতিতে আলোচনা চলছে তাতে তৃণমূলের কিছুটা হলেও চিন্তা বাড়ছে বলেও মনে করছেন অনেকেই।

Close
Close