চাকরির খবরটাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে বড়সড় ঘোষণা করতে চলেছে নবান্ন! রাজ্য জুড়ে তুঙ্গে জল্পনা

বাংলাহান্ট ডেস্ক : শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির (SSC Scam) তদন্তের মাঝেই নতুন নিয়োগ নিয়ে ভাবতে চাইছে রাজ্য। আগামী বৃহস্পতিবার এ রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই বিষয় নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গেছে। সরকারি সূত্রে খবর রাজ্য সরকারি স্কুলগুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বিধিতে ইতিমধ্যেই সম্মতি দিয়েছে রাজ্যের আইন দফতর। নিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ দফতরের সম্মতিও পেয়ে গেছে রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দফতর। বৃহস্পতিবারের রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে তা অনুমোদন হয়ে গেলেই রাজ্যে স্কুলগুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে স্কুল সার্ভিস কমিশন (SSC)।

নিয়োগের বিষয়ে রীতিমতো তৎপর রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দফতর।স্কুল শিক্ষা দফতরের পক্ষ থেকে হাইকোর্টে জানানো হয়েছে রাজ্যের প্রধান শিক্ষকের পদে প্রায় আড়াই হাজার শূন্য পদ রয়েছে। সেই শূন্য পদ গুলি যত শীঘ্র নিয়োগ করতে চাইছে রাজ্য। তবে স্কুল ভিত্তিক চূড়ান্ত শূন্য পদের তালিকা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ এসএসসিতে পাঠিয়ে দেবে বলে জানা যাচ্ছে। প্রাথমিকভাবে নিয়োগের বিধিতে রাজ্যের মন্ত্রিসভা অনুমোদন দিলেই সেপ্টেম্বর মাসের গোড়াতেই প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে এসএসসি।

প্রধান শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে বেশ কিছু পরিবর্তন করা হয়েছে। প্রধান শিক্ষক পদের জন্য যে লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হবে তা পুরোটাই লিখিত পরীক্ষা হবে ওএমআর শিটে। মোট ১০০ নম্বরের হবে পরীক্ষা। ৯০ নম্বর হবে ওএমআর শিটে এবং ১০ নম্বর হবে ইন্টারভিউতে। এসএসসি সূত্রে খবর সেক্ষেত্রে প্রশ্নপত্র কেমন হবে তা বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর জানিয়ে দেওয়া হবে।

ইন্টারভিউ-এর ক্ষেত্রেও নিয়মে একাধিক বদল আনা হয়েছে। উত্তীর্ণ প্রার্থীদের কাউন্সিলিংয়ের ক্ষেত্রেও অনেক কিছু বদলেছে বলে জানা যাচ্ছে। শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুও এসএসসি চেয়ারম্যানের সঙ্গে একাধিকবার বৈঠক করেছেন এই নিয়োগ বিধি নিয়ে।

জানা যাচ্ছে, প্রধান শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সাথেই নবম-দশম ও একাদশ-দ্বাদশ স্তরে নয়া নিয়োগের ভাবনাও রয়েছে শিক্ষা দফতরের। হাইকোর্টে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী নবম-দশম ও একাদশ-দ্বাদশ মিলিয়ে প্রায় কুড়ি হাজার শিক্ষক পদ রয়েছে। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে তৃণমূলের বেহাল দশায় নতুন নিয়োগ করে ইতিবাচক বার্তা দিতে চাইছে রাজ্য সরকার। এমনি মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

Related Articles