শ্বশুরবাড়ি থেকে উদ্ধার বিপুল পরিমাণ টাকা! রেশন মামলায় ED-র হাতে গ্রেফতার তৃণমূলের শঙ্কর আঢ্য

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ গত অক্টোবর মাসে রেশন দুর্নীতি মামলায় রাজ্যের প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী তথা বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে (Jyotipriya Mallick) গ্রেফতার করে ইডি (Enforcement Directorates)। তার আগে বাকিবুর (Bakibur Rahaman) নামের এক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছিল কেন্দ্রীয় সংস্থা। এই দুজনার যোগসূত্র ধরেই তদন্ত চালাচ্ছে ইডি। আর মন্ত্রীর সূত্রেই এবার ইডির জালে আরও এক। এবার গ্রেফতার জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ঘনিষ্ঠ শঙ্কর আঢ্য (Arrested Bangaon Municipality former chairman Shankar Adhya)।

   

শুক্রবার সকালেই উত্তর ২৪ পরগনার (North 24 Pargana) বনগাঁ পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্যর শ্বশুরবাড়িতেও হানা দেয় ইডি। টানা ১৭ ঘণ্টা তল্লাশির পর অবশেষে রাতে গ্রেফতার করা হয় শঙ্কর আঢ্যকে। সূত্রের খবর, শঙ্কর আঢ্যর শ্বশুরবাড়ি থেকে সাড়ে ৮ লক্ষ টাকা উদ্ধার হয়েছে। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথিও বাজেয়াপ্ত করেছে ইডি।

গতকাল শঙ্কর আঢ্যর শ্বশুরবাড়িতে ছাড়াও নেতার একাধিক ঠিকানায় হানা দেয় কেন্দ্রীয় এজেন্সি।গাইঘাটায় শঙ্করের ভাই মলয় আঢ্যর আইসক্রিম ফ্যাক্টরিতেও হানা ইডি। শঙ্কর আঢ্যর কর্মচারী বিশ্বজিৎ ঘোষ ও অঞ্জন মালাকারের বাড়িতে হানা দেয় ইডি। পাশাপাশি বাঘাযতীনে তার হিসাবরক্ষকের বাড়িতেও তল্লাশি চালায় ইডি। তৃণমূল নেতার সহযোগী বাবলু দাসের আবাসনেও চলে জোর তল্লাশি।

আরও পড়ুন: আজ দিনভর দুর্যোগ দক্ষিণবঙ্গে! বৃষ্টিতে ভিজবে কোন কোন জেলা? একনজরে আবহাওয়ার খবর

শুক্রবার রেশন দুর্নীতির তদন্তে সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখের বাড়িতে তল্লাশি চালাতে গিয়ে শোরগোল পড়ে যায়। তৃণমূল অনুগামীদের হাতে মার খেয়ে পালিয়ে বাঁচেন ইডি আধিকারিক সহ কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা। যা নিয়ে দিনভর উত্তপ্ত ছিল রাজ্য-রাজনীতি। আর রাতেই গ্রেফতার হলেন আরেক ‘প্রভাবশালী’ তৃণমূল নেতা।

edff

প্রসঙ্গত, ইডি সূত্রে খবর, গত সেপ্টেম্বর মাসে রেশন দুর্নীতির মামলায় তল্লাশি চালিয়ে তাদের হাতে একাধিক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে। গোয়েন্দাদের অনুমান কয়েকশো কোটি টাকার আর্থিক দুর্নীতি হয়েছে। অন্যদিকে সম্প্রতি রেশন দুর্নীতি মামলায় চার্জশিট জমা করেছে ইডি। তাতে বিস্ফোরক সব অভিযোগ সামনে এসেছে। চার্জশিটে ইডির দাবি খাদ্য দফতরের মন্ত্রী বদল হলেও দেদারে চলেছে দুর্নীতি। বন দফতরে থেকেও খাদ্য দফতরের চাবি বলুর কাছেই ছিল কিনা সেই নিয়েও উঠছে প্রশ্ন।

রেশন বন্টন দুর্নীতি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে গত বছর ডিসেম্বরে বনমন্ত্রীর দফতরে (West Bengal Forest Department Office) পৌঁছে যায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (Enforcement Directorate)। দুর্নীতির হদিস পেতে অরণ্য ভবনে হানা দেয় ইডি। রেশন মামলার তদন্তে সেই প্রথম কোনও মন্ত্রীর দফতরে হানা দিয়েছিল ED.

সম্পর্কিত খবর