কলকাতায় এসেই হঠাৎ মমতার পাড়ায় পৌঁছে গেলেন অমিত শাহ! তারপর যা হল…

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ লোকসভা নির্বাচনের মাত্র কিছুদিন বাকি। এরই মধ্যে ফের বঙ্গে পা রেখেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah)। সাথেই এসেছেন সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা (J P Nadda)। মঙ্গলবার সকালে উত্তর কলকাতায় মহাত্মা গান্ধী রোডে গুরুদ্বারে পৌঁছে যান শাহ-নড্ডা। জনসংযোগও করেন। এর পরই সটান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দেয়াপাধ্যায়ের (CM Mamata Banerjee) পাড়ায় হাজির হন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

   

মমতার পাড়ায় পৌঁছে কালীঘাট মন্দিরের দর্শন করেন শাহ। গেরুয়া শিবির সূত্রে জানা যাচ্ছে, রাজ্য বিজেপির ২৪ জনের কোর কমিটির সঙ্গে আজ দুপুরে বৈঠকে বসতে চলেছেন শাহ-নাড্ডা। আজ বিজেপির পর্যালোচনা বৈঠক। দুটি পর্যায়ে হবে সাংগঠনিক বৈঠক। বিজেপি জেলা ও জোনের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা কোর কমিটির সদস্য় ও পর্যবেক্ষকদের বৈঠক করবেন শাহ-নাড্ডা। মঙ্গলের বৈঠকে রাজ্য নেতৃত্বের পাশাপাশি বিজেপির সাংসদ বিধায়করাও থাকবেন।

সম্প্রতি ৫ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে ভাল ফল করেছে বিজেপি। রাজনৈতিক মহলের মতে লোকসভার আগে সেই ভোটের ফলাফলই ছিল সেমিফাইনাল। সেই সেমিফাইনালে ভালো ফল করে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে গেরুয়া শিবিরের। মূলত ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে এগোচ্ছে তারা। যত বেশি সংখ্যক আসন নিজেদের ঝুলিতে আনা যেতে পারে সেই দিকেই নজর তাদের।

আরও পড়ুন: DA নিয়ে অসন্তোষের মাঝেই কপালে চিন্তার ভাঁজ! এবার পেনশন নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করল অর্থ দফতর

উল্লেখ্য, গত লোকসভা নির্বাচনে ১৮ টি আসন নিজেদের ঝুলিতে আনতে পেরেছিল বিজেপি। তবে এগুলোর মধ্যে অনেক কেন্দ্রেই সাংসদদের জনপ্রিয়তা কমেছে বলে খবর। তাই এবার সেসব জায়গায় নতুন প্রার্থী দেওয়া হতে পারে বলে সূত্রের খবর। শুধু তাই নয়, মহিলা বিধায়ক ও অন্যান্য জনপ্রতিনিধিদেরও ভোটে প্রার্থী করা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। সূত্রের খবর, শাহী বৈঠকের মূল আলোচ্য বিষয় হল গত বার তারা যে সকল আসন গুলি পেয়েছিলেন সেই আসন গুলি বর্তমানে কি পর্যায়ে রয়েছে সেই সব নিয়েই পর্যালোচনা হবে।

bjp meeting 7

জানা যাচ্ছে আজ নিউটাউনে হোটেলে সাংগঠনিক বৈঠক করবেন শাহ। ওদিকে জাতীয় গ্রন্থাগারের ভাষা ভবনেও গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসবেন শাহ। সূত্রের খবর, বৈঠকের আগে লোকসভা কেন্দ্র ধরে ধরে বঙ্গ নেতৃত্বকে রিপোর্ট তৈরি রাখার নির্দেশ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। ২৪ এর আগে আজ বঙ্গ বিজেপিকে নয়া দিশা দেখাতে পারে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। এমনটাই মনে করা হচ্ছে।