‘DA বাধ্যতামূলক নয়, সরকার বিদেশ যাওয়ার সুযোগ তো করে দিয়েছে’, সরকারি কর্মচারীদের কড়া বার্তা মমতার

বাংলা হান্ট ডেস্ক : বিগত বছর ধরেই মহার্ঘ্য ভাতার জন্য লড়ে যাচ্ছে রাজ্য সরকারের কর্মচারীরা। আর এবার সেই ইস্যু নিয়েই নিরবতা ভাঙলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) । যদিও তিনি যা বলেছেন তা আন্দোলনকারীদের জন্য খুব একটা সুখকর নয়। এইদিন কড়া ভাষায় মমতা জানিয়ে দিলেন, “ডিএ (Dearness Allowance) বাধ্যতামূলক নয়, অপশন মাত্র।” পাশাপাশি তিনি বলেন, রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা বাড়তি ছুটি তো পানি তার সাথে বিদেশ যাওয়ার মত সুযোগও করে দেওয়া হয়েছে।

ধুমধাম করে উদযাপন হল অমিত শাহের সভা

   

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বুধবার বেশ ধুমধাম করেই পালন হল ধর্মতলায় অমিত শাহের (Amit Shah) সভা। এইদিন বাংলা উজাড় করে লোক এসেছিল শাহের শাহী সভা দেখতে। সকলের নজর ছিল হাইকম্যান্ডের বক্তব্যের উপর। অন্যদিকে তৃণমূল সুপ্রিমো বিধানসভায় উপস্থিত হয়েছিলেন কালো পাড়ের শাড়ি পরে। তৃণমূল বিধায়কদের পরনেও ছিল কালো পোশাক।

DA নিয়ে কড়া বক্তব্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

যদিও এইদিন বিধানসভায় বিরোধী দলের কেউই উপস্থিত ছিলেননা। বিরোধীশূন্য অধিবেশনে DA নিয়ে বড় মন্তব্য করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি তার সরকার রাজ্য সরকারের কর্মচারীদের জন্য ঠিক কত ধরণের বাড়তি সুযোগ সুবিধা এনেছে সেসব কিছু নিয়েও মুখ খোলেন তিনি। আর সেই সাথে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন, “মহার্ঘ ভাতা কিন্তু ম্যান্ডেটরি নয়, এটা অপশন।”

আরও পড়ুন : ‘শুভেন্দুকে সাসপেন্ড করলেও মানুষকে…’, ধর্মতলা থেকে মমতার সরকার উৎখাতের ডাক অমিত শাহের

এইদিন অধিবেশনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “গত ২ বছরে ২ লক্ষ ৫২ হাজার কোটি টাকার বেশি খরচ করেছি। নতুন পে কমিশনের হিসেবে DA দেওয়া হয়েছে।” যদিও রাজ্য সরকারের কর্মচারীরা তা মানতে রাজি নন। তারা বারংবার অভিযোগ জানিয়েছেন, যেখানে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীরা ৪০ শতাংশ হারে ডিএ পাচ্ছেন সেখানে তারা এই অঙ্কের অর্ধেকও পাচ্ছেননা। এমনকি বাকি রয়েছে বকেয়াও।

dearness allowance

 

আরও পড়ুন : CAA কেউ রুখতে পারবে না’, লোকসভা ভোটের আগে ‘মমতা’র সরকারকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে গেলেন শাহ

রাজ্যের কর্মচারীরা বাড়তি ছুটি পান

এই অভিযোগের জবাবদিহিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘কেন্দ্রের কর্মচারীরা কেন্দ্রের স্ট্রাকচার অনুযায়ী চলে। সেই অনুযায়ী বেতন, DA পায়। কেউ চাইলে ওখানে জয়েন করতে পারে।’ তার সাথেই তিনি মনে করিয়ে দেন, ‘ভুলে গিয়েছেন, বছরে তাঁরা ৩-৪ দিন বাড়তি ছুটি পান। আমাদের এখানে যে ৪০ দিন ছুটি পান, এটারও তো ভ্যালু অ্যাড করতে হবে। এই সরকারই একমাত্র বিদেশে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে।’

আরও পড়ুন : ‘লোকসভায় মমতাকে সাসপেন্ড করুন’, বিধানসভা থেকে নির্বাসিত হতেই পালটা তোপ দাগলেন শুভেন্দু

রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা পেনশন পান

এরই সাথে পেনশনের (Pension) বিষয়টিও যোগ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘একমাত্র রাজ্য বাংলা, যারা সরকারি কর্মচারীদের পেনশন দেয়। অনেকে বলেছে বন্ধ করে দাও তাহলে সুদের টাকার পরিমাণ কমে যাবে। আমি বলেছি না, একটা জীবন ৬০ বছরের নয়, আরও ২০-৩০ বছর মানুষ বাঁচে। তাঁরা সংসার চালাবেন কীভাবে?’