সন্দেশখালিতে জখম হয়েছিলেন ইডিকর্তা রাজকুমার! তার বিরুদ্ধেই বিস্ফোরক অভিযোগ, তদন্ত করছে CBI

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ শুক্রবার সকালে রেশন দুর্নীতির তদন্তে তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহান (Sheikh Shahjahan) বাড়ি গিয়ে আক্রান্ত হয় খোদ ইডি। জেলা পরিষদের মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ কর্মাধ্যক্ষের শেখ শাহজাহানের বাড়িতে ইডির (Enforcement Directorates) অভিযান ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে উত্তর ২৪ পরগনার (North 24 parganas) সন্দেশখালি। তৃণমূল নেতার অনুগামীদের হাতে মার খেতে হয় ইডি অফিসারদের। ঘটনায় সময় সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরায় উঠে আসে মাথা ফেটে গুরুতর জখম হওয়া এক ইডি আধিকারিক রাজকুমার রাম (Rajkumar Ram)। এবার এই অফিসারকে নিয়েই নতুন তথ্য সামনে আসছে।

   

ইডি অফিসার রাজকুমার রামের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ রয়েছে? অভিযোগের ভিত্তিতে সেই ঘটনার তদন্ত করছে সিবিআই (CBI) ? ২০২২ সালে রাজকুমার রাম নামে এক ইডি আধিকারিকের বিরুদ্ধে একটি এফআইআরের প্রতিলিপি সামনে আসায় নতুন করে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

যদিও সেই ইডিকর্তাই সন্দেশখালির ঘটনায় জখম হওয়া রাজকুমার রাম কি না সেই বিষয়ে নিশ্চিতভাবে কিছু জানা যায়নি। তবে সেই রাজকুমার আর এই রাজকুমারের মধ্যে বেশ কিছু মিল রয়েছে। ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে সন্দেশখালিতে আক্রান্ত হওয়া রাজকুমার সংস্থার সহ-অধিকর্তা পদে রয়েছেন।

ইডি সূত্রে খবর, ঘটনার দিন সন্দেশখালির অভিযানে ছিলেন ইডির আট সদস্যের প্রতিনিধি দল। তাদের মধ্যে গ্রামবাসীর হামলায় গুরুতর জখম হল ইডির তিন আধিকারিক। তালিকায় ছিলেন রাজকুমারও। সন্দেশখালির ঘটনার পর সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় তাকে। এবার তার নামেরই এক ইডি অফিসারের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া এফআইআরের প্রতিলিপি সামনে আসছে।

আরও পড়ুন: হাসপাতালে বোসেই মেয়েকে রেশন দুর্নীতির হিসেবের চিঠি বালুর, আদালতে যা জানাল ED, শোরগোল

এফআইআর অনুযায়ী, রাজকুমার নামে এক ইডি আধিকারিকের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র ও আয়বহির্ভূত সম্পতির মালিকানা সংক্রান্ত অভিযোগ দায়ের রয়েছে। ২০২২ সালে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১০৯ ও ১২০-বি এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ১৩(২) ও ১৩(১)(বি) ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে সেই ইডিকর্তার বিরুদ্ধে। ২০১৬- ২০২০ সালের মধ্যে অস্বাভাবিক হারে বেড়েছে রাজকুমারের সম্পত্তি। সামঞ্জস্যহীন আয়ের উৎস কি সেই নিয়েই প্রশ্ন উঠেছিল।

sandeshkhali

এফআইআর থেকেই জানা যায়, যে সময়ে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয় সেই সময় বেঙ্গালুরুতে কর্মরত ছিলেন রাজকুমার। এরপর অবশ্য গুয়াহাটির দফতরে বদলি হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। ঘটনাচক্রে, সন্দেশখালিতে আক্রান্ত অফিসার রাজকুমার রামও পূর্বে বেঙ্গালুরু ও গুয়াহাটির ইডি দফতরে কর্মরত ছিলেন। দুজনের মধ্যে বেশ কিছু ক্ষেত্রে মিল থাকায় সন্দেশখালির রাজকুমার আর অভিযুক্ত রাজকুমারকে একই ব্যক্তি মনে করছেন কেউ কেউ। যদিও এই বিষয়ে সরকারি ভাবে কিছু জানা যায়নি।

সম্পর্কিত খবর