কেন কেড়ে নেওয়া হল পদ! নেপথ্যে বড় কোনও কারণ? এবার মুখ খুললেন খোদ দিলীপ ঘোষ

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বছর ঘুরলেই লোকসভা নির্বাচন (Loksabha Election)। তার আগে শনিবার প্রকাশ হয়েছে জাতীয় স্তরে বিজেপির (Bharatiya Janata Party) সাংগঠনিক পদের নয়া তালিকা। গতকাল সকালে নতুন কেন্দ্রীয় কমিটির নামের তালিকা ঘোষণা করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। তারপরেই রীতিমতো শোরগোল রাজ্যজুড়ে।

   

দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সংগঠনে বড়সড় রদবদল করেছে গেরুয়া শিবির। আর তার জেরে BJP-র সর্বভারতীয় সহসভাপতির দায়িত্ব থেকে বাদ পড়েছেন দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। যা নিয়ে জোর চর্চা রাজ্য-রাজনীতিতে।

একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবেই দলে সুনাম তার। তবে হঠাৎ কেন্দ্রীয় সংগঠনের বিরাট রদবদলে বিজেপির সর্বভারতীয় সহসভাপতি পদ থেকে সরানো হল দিলীপ ঘোষকে। অনেকে বলছেন লোকসভার আগে দিলীপবাবুকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় আনা হতে পারে, তাই সর্বভারতীয় পদ থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। আবার অনেকে বলছেন বিভিন্ন সময় বিতর্কিত মন্তব্য করার জেরেই তার পদচ্যুতি। তবে এই সকল জল্পনা-কল্পনার মধ্যে এবার দলের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে মুখ খুললেন খোদ দিলীপ ঘোষ।

ঠিক লোকসভা ভোটের আগেই কেন দিলীপকে সরানো হল? এই নিয়ে বিজেপির অন্দরেই নানা জল্পনা। দল কোনও প্রতিক্রিয়া না দিলেও এই নিয়ে মুখ খুলেছেন মেদিনীপুরের বিজেপি সাংসদ দিলীপ ঘোষ। একটি অডিওবার্তায় তিনি বলেন, যারা যারা লোকসভা ভোটে লড়বেন, তাদের সবাইকে নিজের এলাকায় কাজ করতে হবে। তাই কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

dilip

সাংসদের ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, গতবছর লোকসভা ভোটে আশানুরূপ ফল না হলেও দিলীপ ঘোষের হাত ধরে ১৮টি লোকসভা আসন আসে বিজেপির ঝুলিতে। আর ২০২৪ সালে লোকসভা ভোটে ৩৫ আসন জেতার লক্ষ্য বেঁধে দিয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। সেই লক্ষ্যে পৌঁছতেই কাজে লাগানো হতে পারে দিলীপ ঘোষকে।