দুজনার দুই ‘ওষুধ’! SSKM-এ জ্যোতিপ্ৰিয় আর কাকুর জন্য যা করল ED…,শোরগোল

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ একজন নিয়োগ দুর্নীতি (Recruitment Scam), আরেকজন রেশন দুর্নীতি (Ration Scam), দুই কেলেঙ্কারির মামলায় গ্রেফতার হয়েও বর্তমানে SSKM-এ দিন কাটছে দুজনার। এখানে কথা হচ্ছে রেশন বন্টন মামলায় ধৃত রাজ্যের প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী তথা বর্তমান বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক (Jyotipriya Mallick) ও শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় ধৃত সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র (Sujay Krishna Bhadra) ওরফে কালীঘাটের কাকুর। দীর্ঘদিন থেকে তারা সরকারি হাসপাতালে থাকলেও এবার দুজনের ওপর নজরদারি চালানোর জন্য দু’টি উপায় বার করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডি (Enforcement Directorates)।

   

বর্তমানে এসএসকেএম হাসপাতালের আইসিইউতে রয়েছেন রেশন দুর্নীতিতে ধৃত জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। সম্প্রতি হাসপাতালে জ্যোতিপ্ৰিয়কে সিসি ক্যামেরার নজরদারিতে রাখার নির্দেশ দেয় কলকাতার বিচার ভবন। সেই মতোই জ্যোতিপ্রিয় ওরফে বালুর রুমের ভেতর লাগানো হয়েছে বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন দু দুটি ‘সেন্সর’ সিসি ক্যামেরা। যার দ্বারা অডিও, ভিডিও দুয়েই চলবে নজরদারি।

জেল ও হাসপাতাল সূত্রে আরও খবর, ক্যামেরার পাশাপাশি জ্যোতিপ্রিয়র রুমের বাইরে গেটের সামনে এবার থেকে রাখা থাকবে রেজিস্টার খাতা। মন্ত্রীমশাইয়ের রুমে কখন কোন ডাক্তার, নার্স ঢুকছেন সমস্ত কিছু লিখে ঢুকতে হবে। সিসি ক্যামেরা ফিড লিংক থাকবে ইডির কাছে।অন্যদিকে বেজায় ‘অসুস্থ’ হয়ে কালীঘাটের কাকু বর্তমানে এসএসকেএমের হৃদ্‌রোগ বিভাগের ইনটেনসিভ করোনারি কেয়ার ইউনিট (আইসিসিইউ)-এ ভর্তি রয়েছেন। কেবিনের বাইরে তাকে সর্বক্ষণ পাহারা দেওয়ার জন্য রয়েছেন কেন্দ্রীয় বাহিনী সিআইএসএফ-এর জওয়ানেরা।

আরও পড়ুন: ছুটির দিন শেষ! এবার করতে হবে টানা কাজ, ডিসেম্বর নিয়ে সরকারি কর্মীদের মাথায় বাজ

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবারই কাকুর কণ্ঠস্বরের নমুনা পরীক্ষা করতে চেয়েছিল ইডি (Enforcement Directorates)। সেই লক্ষ্যে সকালে জোকার ইএসআই হাসপাতাল থেকে বিশেষ অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে এসএসকেএমে পৌঁছেও যান ইডির আধিকারিকরা।

ed 3

তবে হাসপাতালে পৌঁছে ইডি খবর পায় কালীঘাটের কাকুর বুকে ফের ব্যথা শুরু হয়েছে। সেই কারণে বৃহস্পতিবার রাতেই তাকে আইসিসিইউতে নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে আইসিসিইউ এর ১৮ নম্বর বেডে ভর্তি রয়েছেন সুজয়কৃষ্ণ। হাসপাতালের অনুমতি না মেলায় সুজয়কৃষ্ণকে শুক্রবার ইএসআই হাসপাতালে নিয়ে যেতে পারেনি ইডি।

প্রসঙ্গত, নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে নেমে আগেই মোবাইল বাজেয়াপ্ত হয়েছে সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র ওরফে ‘কালীঘাটের কাকু’র কাছ থেকে। কিন্তু সেখানে পাওয়া কল রেকর্ডিং এর এক প্রান্তের গলা যে ‘কাকু’র, তা প্রমাণ করতে চাই ‘কাকু’র কণ্ঠস্বরের নমুনা। তবে এখনও অধরা সেই কণ্ঠস্বর! একবার কাকুর গলার স্বরের নমুমা মিললেই কোমর বেঁধে ময়দানে নামতে পারবে ইডি।

তবে কণ্ঠস্বর পেতে বহু চেষ্টার পরও সফল হয়নি ইডি। একের পর এক বাধা এসেই চলেছে। এর আগে এসএসকেএম হাসপাতাল সূত্রে বারংবার জানানো হচ্ছে অসুস্থ সুজয়কৃষ্ণ। সম্প্রতি চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, প্রবল মানসিক চাপে রয়েছেন কালীঘাটের কাকুর। বিভিন্ন শারীরিক জটিলতাও রয়েছে। এই অবস্থায় তার গলার স্বরের নমুনা সংগ্রহ করতে গেলে সমস্যা বাড়বে। তবে ইডিও ছাড়ার পাত্র নয়। কণ্ঠস্বরের নমুনা দেওয়ার মতো শারীরিক অবস্থা সুজয়কৃষ্ণের আছে কি না, সে বিষয় খতিয়ে দেখতে তৎপর সংস্থা। সেই কারণে সুজয়কৃষ্ণকে এসএসকেএম থেকে জোকার ইএসআই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ইডি। তবে এসবের মধ্যেই ICU তে কালীঘাটের কাকু।