ইলশেগুঁড়ি বৃষ্টিতেই ধরা পড়লো ৩৫মণ ইলিশ! মরশুম শুরুর আগেই লাখে লাভ মৎসজীবীদের

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক: ভোজন রসিক বাঙালির কাছে বিশেষ করে মৎস্যপ্রেমীদের (Fish Lover) কাছে প্রিয় মাছ মানেই প্রথমেই আসে ইলিশের (Hilsa) নাম। তাই সারা বছর এই সময়টার জন্যই অপেক্ষা করে থাকেন আপামর বাঙালি।  আর এবার তো ইলিশের মরশুম শুরুর আগেই সামান্য ছিঁটেফোঁটা বৃষ্টি পড়তেই মৎস্য চাষীদের (Fisherman) মুখে হাসি ফুটিয়ে জালে ধরা পড়লো বড় বড় এক ঝাঁক রুপালী শস্য।

মাছের সাইজ বড় হওয়ায় দামও ভালো পাওয়া গিয়েছে। যার ফলে মৎস্যচাষীদের মুখের হাসিও চওড়া হয়েছে দ্বিগুণ। সাধারণত ইলিশের কথা উঠলে সকলের মনে প্রথমেই আসে ওপার বাংলার পদ্মা নদীর ইলিশ। তবে এদিন মৎস্যচাষীরা যে ইলিশ বিক্রি করে বিরাট লাভবান হয়েছেন তা কিন্তু পদ্মার ইলিশ নয়।

এই ইলিশ ধরা পড়েছিল নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় বঙ্গোপসাগরে। আসলে এবার মেঘনা নদীতে তেমন মাছ না পেয়ে দিন চারেক আগে ২০ জনকে নিয়ে গভীর সমুদ্রে তথা বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন হাতিয়ার বুড়িদোনা এলাকার মৎস্যজীবী ইউসুফ মাঝি। সেই সময়েই সবাইকে অবাক করে দিয়ে তিনি একবার জাল ফেলা মাত্রই সেই জালে উঠে আসে একসাথে পাঁচ হাজার ইলিশ।

আরও পড়ুন: ৬০ কিমি বেগে কালবৈশাখী কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের ৬ জেলায়, কখন শুরু? আবহাওয়ার খবর

শুধু তাই নয় এদিন যে সমস্ত ইলিশ তিনি ধরেছিলেন তার মধ্যে বেশিরভাগই ছিল বড় ইলিশ। জানা যাচ্ছে শুক্রবার দুপুর থেকে রাত দশটা পর্যন্ত হাতিয়ার চেয়ারম্যান ঘাটের সাইফুল ইসলাম মৎস্য আড়তে বিভিন্ন ধাপে বিক্রি করা হয়েছে এই  ইলিশ।

hilsa 3

মৎস্য চাষীরাই  জানিয়েছেন বঙ্গোপসাগরে ওইদিন একটি ট্রলার থেকেই পাওয়া গিয়েছিল ৩৫ মণ ওজনের ইলিশ। যার মধ্যে ছিল মোট পাঁচ হাজার পিস ইলিশ। ওই মাছ নিলামে বিক্রি করা হয়েছে মোট ১৬ লক্ষ ৬৪ হাজার টাকায়। স্বাভাবিকভাবেই মাছের ভালো দাম পাওয়ায় বেজায় খুশি মৎস্যজীবীরা। সেই সাথে তারা এদিন জানিয়েছেন অল্প বৃষ্টিতেই এত ভালো মাছ পাওয়া নাকি ইঙ্গিত দিচ্ছে আগামী দিনে আরো ভালো ইলিশ পাওয়া যাবে।

Anita Dutta
Anita Dutta

অনিতা দত্ত, বাংলা হান্টের কনটেন্ট রাইটার। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৪ বছরের বেশি সময় ধরে সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত।

সম্পর্কিত খবর