টাইমলাইনটেক নিউজআন্তর্জাতিক

মার্কেটে এসে গেল উড়ন্ত গাড়ি! শুরু হয়ে গেছে বুকিং, দাম এত টাকা

বাংলা হান্ট ডেস্ক: পেট্রোল, ডিজেল, সিএনজি ও ইলেকট্রিকের পর এবার বাজারে আসতে শুরু করেছে উড়ন্ত গাড়ি (Flying Car)। হ্যাঁ, শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও এটাই সত্যি হতে চলেছে। এখনও পর্যন্ত এমন গাড়ির প্রসঙ্গ আমরা কল্পবিজ্ঞানের বই বা সিনেমাতে পেলেও এবার সেই অসম্ভবকেই রীতিমতো সম্ভব করা গিয়েছে। এমনকি, আপনি নিজের জন্যও একটি উড়ন্ত গাড়ি কিনতে পারেন। পাশাপাশি, এগুলি এমনভাবে তৈরি করা হচ্ছে যা আপনি রাস্তায় চালাতে পারেন আবার আকাশেও ওড়াতে পারেন।

মূলত, সুইচব্লেড (Switchblade) হল প্রথম উড়ন্ত গাড়ি যা আপনি মার্কিন বাজারে কিনতে পারবেন। ইতিমধ্যেই এই গাড়িটি প্রায় দু’হাজার জন বুক করে ফেলেছেন। জানা গিয়েছে Samson Sky এই গাড়িটি তৈরি করতে প্রায় ১৪ বছর ব্যয় করেছে। পাশাপাশি, ডিজাইন, R&D এবং ফান্ড সংগ্রহের জন্য বছরের পর বছর কাজ করার পর, স্যামসন স্কাই-এর প্রথম উড়ন্ত গাড়িটি উচ্চ-গতির ট্যাক্সি টেস্টিং সম্পন্ন করেছে। 87Mph গতিতে এই গাড়িটি ওড়ানোর পাশাপাশি এর ব্রেক টেস্টিংও করা হয়।

তাহলে এটা কি গাড়ি নাকি প্লেন: এমতাবস্থায়, আপনি এটি দু’ভাবেই ব্যবহার করতে পারেন। অর্থাৎ, এটি একটি গাড়ি এবং এটি একটি প্লেনও। মার্কিন বাজারে এই গাড়িটিকে তিন চাকার মোটরসাইকেল হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হলেও এটি উড়তেও পারে। গাড়িটিতে, একজন পাইলট এবং একজন যাত্রী বসতে পারবেন। আর এভাবেই আপনি এটি রাস্তায় চালাতে পারেন অথবা আকাশেও ওড়াতে পারেন।

সবকিছু এতটাও সহজ নয়: এমনিতেই, একটি উড়ন্ত গাড়িকে বাস্তবে পরিণত করা খুবই রোমাঞ্চকর ব্যাপার। কিন্তু এটি এমন একটি প্রজেক্ট যা পূরণ হওয়ার পরেও অসম্পূর্ণ। মূলত, এটি ব্যবহার করার জন্য আপনার একটি রানওয়ে লাগবে। অর্থাৎ, আইনত আপনি ফ্লাইটের প্রোটোকল অনুসরণ করেই এটিকে ওড়াতে পারবেন। এর মানে হল যে, গাড়ির টেক-অফ এবং টেক-ডাউন অবস্থান একটি বিমানের মতোই হবে।

আপনি এই গাড়ি কোথায় ওড়াতে পারেন: এই প্রশ্নটি নিশ্চয়ই অনেকের মনেই আসছে। এই প্রসঙ্গে সংস্থাটি জানিয়েছে, এর মাধ্যমে “আপনি যেখানে খুশি উড়তে পারেন”। কিন্তু বাস্তবে ঘটনাটা একটু অন্যরকম। বর্তমানে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যক্তিগত উড়ন্ত ট্যাক্সিগুলির জন্য কোনো বিশেষ সুবিধা তৈরি করা হয়নি। এছাড়াও, গাড়ির মালিকরা কিভাবে বিমানবন্দরে তাঁদের স্লট বুক করবেন সেই তথ্যও এখনও জানা যায়নি।

আপনাকে নিজের গাড়ি তৈরি করতে হবে: আকাশে উড়ানের ক্ষেত্রে সুইচব্লেড একটি পরীক্ষামূলক হোমবিল্ট এয়ারক্রাফ্ট হিসাবে রেজিস্টার হয়েছে। অপরদিকে, রাস্তায় এটির একটি কাস্টম মোটরসাইকেল বা কিট কার হিসাবে রেজিস্ট্রেশন হয়। অতএব, যারা এটি কিনবেন তাঁদের এই গাড়িটি নিজেরাই তৈরি করতে হবে। এই প্রসঙ্গে কোম্পানির তরফে জানানো হয়েছে, এই গাড়ি তৈরি করতে একজন সাধারণ মানুষের দুই হাজার ঘণ্টা সময় লাগবে। অথবা তাঁরা চাইলে স্যামসন বিল্ডার অ্যাসিস্ট সেন্টারের সাহায্য নিতে পারেন। যেখানে এক সপ্তাহ সময় লাগবে বলে দাবি করেছে সংস্থাটি।

লাইসেন্সেরও কি প্রয়োজন হবে: গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে লাইসেন্স একটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। এমতাবস্থায়, এটি চালানোর জন্য, আপনার গাড়ি এবং বিমান চালানোর লাইসেন্স প্রয়োজন হবে। এই প্রসঙ্গে সংস্থাটি জানিয়েছে যে, যাঁরা গাড়ি বুক করেছেন তাঁদের মধ্যে ২০ শতাংশই পাইলট নন।

দাম কত: এবার আসা যাক এই গাড়ির দামের প্রসঙ্গে। জানা গিয়েছে, এই উড়ন্ত গাড়িটির জন্য আপনাকে ১.৭ লক্ষ ডলার অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১.৩৫ কোটি টাকা খরচ করতে হবে। তবে, এটি হল আনুমানিক মূল্য।

Related Articles