খরচ মাত্র ৪০ টাকা! পেয়ে যাবেন দুর্দান্ত হোটেল, দিঘায় ভ্রমণ করতে চাইলেই এবার সোনায় সোহাগা

বাংলাহান্ট ডেস্ক : দিঘা মানেই বাঙালির ইমোশন। হাতে কয়েক দিনের ছুটি হোক কিংবা কোনও সেলেব্রেশন, সুযোগ পেলেই বাঙালি ঘুরতে চলে যায় এই সমুদ্র নগরীতে। প্রিয় বন্ধুর হাতে হাত রেখে সমুদ্র পাড়ে ঘন্টার পর ঘন্টা কাটানো হোক, কিংবা আত্মীয়দের সাথে হুল্লোড় করে সমুদ্র স্নান, দিঘা মানেই একরাশ আনন্দ।

   

সস্তায় কয়েকটা দিন সম্পূর্ণ আনন্দে ছুটি কাটানোর জন্য সেরা ডেস্টিনেশন দিঘা। দিঘার পরিবহণ ব্যবস্থা এখন যথেষ্ট উন্নত। সড়কপথে দুই চাকা বা চার চাকা গাড়ি করে সহজেই পৌঁছে যেতে পারেন দিঘা। এছাড়াও দিঘা যাওয়ার জন্য রয়েছে একাধিক ট্রেন ও বাস। রাজ্য তো বটেই, দেশের একাধিক জায়গার সাথে সংযুক্ত দিঘা।

আরোও পড়ুন : হাঁটুর বয়সী শ্রীময়ীর সঙ্গে তৃতীয় বিয়ে! পিঙ্কির থেকে ডিভোর্স পেয়েই চুপিসারে কাজ সারলেন কাঞ্চন

তবে দিঘায় গেলে অনেকেরই চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায় হোটেল। অনেকেই বেশি পয়সা খরচা করে লাক্সারি হোটেলে থাকেন। তবে অনেকের পছন্দ বাজেট ফ্রেন্ডলি হোটেল। মোটামুটি ৫০০-১০০০ এর মধ্যে হোটেল খোঁজেন অধিকাংশ মানুষ। তবে এবার মাত্র ৪০ টাকায় আপনারা হোটেল বুক করতে পারবেন দিঘায়। শুনতে অবিশ্বাস্য লাগলেও এটাই সত্যি।

আরোও পড়ুন : বাংলায় ফের বাড়বে DA, রাজ্য সরকারি কর্মীদের কার অ্যাকাউন্টে কত টাকা ঢুকবে? দেখুন হিসেব

রাজ্য সরকারের পশ্চিমবঙ্গ শ্রমিক কল্যাণ পর্ষদের (West Bengal Labour Welfare Board) পক্ষ থেকে বাংলার একাধিক জায়গায় সস্তায় থাকার হোটেল তৈরি করা হয়েছে। রাজ্য সরকার বিভিন্ন জায়গায় তৈরি করেছে হলিডে হোম (Holiday Homes)। দার্জিলিং (Darjeeling), দিঘা (Digha), বকখালিতে (Bakkhali) রয়েছে এই হলিডে হোমগুলি।

img 20240219 124432

কর্মরত শ্রমিকরা এই হোটেলগুলিতে অত্যন্ত কম খরচে থাকতে পারবেন। শ্রমিকরা তাদের পরিবারের সাথে ছুটি কাটাতে পারবেন এই হোটেলগুলিতে। নিউ দিঘার সায়েন্স মিউজিয়ামের বিপরীতে সরকারের এই হোটেল । https://wblwb.org/html/holiday_homes.php – এই ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনারা হোটেলটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। থাকার জন্য এখানে রয়েছে  ২ বেড, ৩ বেড, ৪ বেডের রুম। মাত্র ৪০ টাকা থেকে শুরু হচ্ছে হোটেলের খরচ।

Avatar
Soumita

আমি সৌমিতা। বিগত ৩ বছর ধরে কর্মরত ডিজিটাল সংবাদমাধ্যমে। রাজনীতি থেকে শুরু করে ভ্রমণ, ভাইরাল তথ্য থেকে শুরু করে বিনোদন, পাঠকের কাছে নির্ভুল খবর পৌঁছে দেওয়াই আমার একমাত্র লক্ষ্য।

সম্পর্কিত খবর