এখন লোকসভা ভোট হলে কটি সিট পাবে বিজেপি ? সমীক্ষায় উঠে এল ধামাকাদার রিপোর্ট

বাংলা হান্ট ডেস্ক : আসন্ন লোকসভা নির্বাচন (Lok Sabha Election 2024) দামামা বেজে গিয়েছে ভারতের সবচেয়ে বড় নির্বাচনের। বাকি রয়েছে আর একটি বছর। কিন্তু এরই মধ্যে কোমর বেঁধে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে দেশের ছোট বড় রাজনৈতিক দলগুলি। তৈরি হয়েছে বিরোধী জোট ইন্ডিয়া। যুদ্ধের ময়দানে এনডিএ বনাম ইন্ডিয়া। বিরোধীদের স্লোগান মোদি (Narendra Modi) বনাম ইন্ডিয়া (I.N.D.I.A.) অন্য মাত্রা পেয়েছে।

প্রমাদ গুনছে বিজেপিও। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও ও মাঠে নেমে আক্রমণ শানাচ্ছেন বিরোধী জোট। ‘গদি উলটে যাবে’ প্রচার চালাচ্ছে বিরোধী দলগুলি। সে যতই প্রচার করুক, সাম্প্রতিক সমীক্ষা কিন্তু অন্য কথাই বলছে। দেশের নাম ভাঁড়িয়ে যতই বিরোধী জোট ইন্ডিয়া তৈরি হোক না কেন, ভারতের বুকে এখনও অটুট মোদি ম্যাজিক। একাধিক দক্ষিণী রাজ্য, পাঞ্জাব, পশ্চিমবঙ্গ, রাজস্থানের বিধানসভা বিজেপির হাতছাড়া হোক না কেন, প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে নরেন্দ্র মোদিকেই দেখতে চাইছে আম জনতা।

ইন্ডিয়া টিভি-সিএনএক্স জনমত সমীক্ষায় প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য। ২০১৪ এবং ২০১৯-র মতোই একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে দিল্লির মসনদে ফের বিজেপি সরকার। সমীক্ষার রিপোর্টে দাবি এখুনি যদি ভোট হয় তাহলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট লোকসভায় ৫৪৩-টি আসনের মধ্যে ৩১৮টি আসনে জয়লাভ করবে। ওই সংবাদমাধ্যম নিজের বিখ্যাত টিভি শো ‘দেশ কি আওয়াজ’-এ ওই সমীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করেছে।

অপরদিকে, কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোট ইন্ডিয়া ১৭৫টি এলএস আসন পেতে পারে। এছাড়া আঞ্চলিক দল এবং নির্দল সহ ‘অন্যান্য’ মোট ৫০ টি আসন পেতে পারে। তবে সমীক্ষার দাবি লোকসভায় প্রধানমন্ত্রী মোদির ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির আসন সংখ্যা এবার ৩০৩ থেকে ২৯০-এ নেমে আসতে পারে। অন্যদিকে, প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস যার গত লোকসভায় ৫২ আসন রয়েছে, তাদের আসন সংখ্যা কিছুটা বেড়ে ৬৬ হতে পারে।

loksabha

সমীক্ষায় খুশির খবর তৃণমূলের জন্য। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস এবার লোকসভায় ২৯টি আসন নিয়ে তৃতীয় বৃহত্তম দল হিসাবে উঠে আসতে পারে। গতবারের ২২টি আসন থেকে ৭টি বেশি। অন্ধ্র প্রদেশের ক্ষমতাসীন ওয়াইএসআর কংগ্রেস পার্টি ১৮টি আসন নিয়ে চতুর্থ বৃহত্তম দল হতে পারে, যা গতবারের ২২টি আসনের থেকে ৪টি কম।

মহারাষ্ট্রে উদ্ধব ঠাকরের শিবসেনা তাদের আসন সংখ্যা বর্তমানের ৬ থেকে বাড়িয়ে ১১ করতে পারে, যেখানে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি এখন নির্বাচন হলে তাদের সংখ্যা বর্তমানে ১ আসন থেকে বাড়িয়ে ১০ টি আসন জিততে পারে। ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের বিজু জনতা দল তাদের সংখ্যা ১২টি আসন থেকে ১টি বাড়িয়ে ১৩টি আসন জিততে পারে। অপরদিকে শোচনীয় ফল হবে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী একনাথ শিন্দের শিবসেনার। তাদের আসন সংখ্যা ১২ থেকে ২-এ নামিয়ে আনতে পারে।

ভারত জুড়ে যেমন দেখা যাবে মোদি ক্যারিশ্মা, তেমনই বাংলার বুকে চলবে ‘দিদির দাদাগিরি’। গত বারের ২২টি আসন থেকে বেড়ে ২৯টি আসনে জোড়াফুল ফোটাবে মমতার দল। অপরদিকে ১৮ থেকে কমে ১২ আসনে ফুটবে পদ্ম। এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ্যে আনল সাম্প্রতিক সমীক্ষা।