এবার পুজোর আগেই বাংলায় চতুর্থ ‘বন্দে ভারত’! এই রুটে চলবে ট্রেন, তথ্য প্রকাশ রেলের

বাংলাহান্ট ডেস্ক : ভারতীয় রেল (Indian Railways) ক্রমাগত নিজেদের আরও উন্নতির পথে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। প্রতি সময় একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে রেলের পক্ষ থেকে। পুরনো প্রযুক্তি বদলে রেলকে আধুনিক প্রযুক্তিতে রূপান্তরিত করা হচ্ছে। বন্দে ভারত এক্সপ্রেস ভারতীয় রেলের এমনই একটি যুগান্তকারী ফসল।

সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি সেমি হাই স্পিড এই ট্রেন নিঃসন্দেহে বিপ্লব এনেছে ভারতীয় রেলের ইতিহাসে। এই মুহূর্তে ভারতীয় রেলের অত্যাধুনিক বন্দে ভারত এক্সপ্রেস দেশের ২৫টি রুটে যাতায়াত করে। এরমধ্যে তিনটি রুট রয়েছে বাংলায়। তবে সূত্রের খবর খুব শীঘ্রই বলা ভালো, পুজোর আগেই বাংলায় আরও একটি বন্দে ভারত এক্সপ্রেস চালু হতে চলেছে।

আরোও পড়ুন : ‘ভাবতে পারছি না সব শেষ…’ আদরের ছোট বোনের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ অভিনেতা সাহেব চট্টোপাধ্যায়

হাওড়া- নিউ জলপাইগুড়ি, নিউজলপাইগুড়ি-গুয়াহাটি, হাওড়া-পুরী রুটে ৩ টি বন্দে ভারত ট্রেন ইতিমধ্যেই চলাচল করছে। এবার হাওড়া থেকে পাটনা এবং পাটনা থেকে হাওড়া পর্যন্ত নতুন এই বন্দে ভারত যাতায়াত করবে। ইতিমধ্যে দুবার সফলভাবে ট্রায়াল রান সম্পন্ন হয়েছে এই রুটে। তবে ট্রেন কবে রওনা হবে, তা নিয়ে এখনও কোনও দিনক্ষণ জানা যায়নি।

 

পাটনা-হাওড়া বন্দে ভারত ট্রেন দুটি পাটনা থেকে হাওড়া যেতে মোট ৫৩৫ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করবে। ফলে এবার বন্দে ভারতে চেপেই বিহার পৌঁছে যাবেন ৬ ঘণ্টা ৩০ মিনিটে। এই ট্রেনের গতিবেগ থাকবে ৯০ থেকে ১১০ কিলোমিটারের মধ্যে। এদিকে, প্রতি ঘন্টায় বন্দে ভারতের গতিবেগ ১৬০ কিমি থাকলেও সেই গতিতে এটি চালানো হয় না।

আরোও পড়ুন : জওয়ান দেখে চরম ক্ষুব্ধ শাহরুখ ভক্ত! হল থেকে বেরিয়েই চাইলেন টাকা ফেরত

পটনা-হাওড়া বন্দে ভারত এক্সপ্রেস ট্রেনের ভাড়া কত হবে তা নিয়ে রেল এখনও কোনও কিছু জানায়নি। তবে বিশেষঞ্জদের মতে পটনা-হাওড়া রুটে বন্দে ভারতের এসি এক্সেকিউটিভ চেয়ার কারের টিকিটের জন্য ভাড়া 2650 টাকা হতে পারে। অন্যদিকে, এসি চেয়ার কারের জন্য 1450 টাকা ভাড়া নেওয়া হবে। ওই ভাড়ার মধ্যেই খাবারও পরিবেশন করা হবে।

stoppage list of patna howrah vande bharat express 1024x576.jpg

পটনা-হাওড়া বন্দে ভারত এক্সপ্রেস ট্রেনের রুটের স্টপেজ নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও সিদ্ধান্ত রেলের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি। ভারতীয় রেল এই বিষয় শীঘ্রই জানাবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে বর্তমানে মনে করা হচ্ছে যে ট্রেনটি আসানসোল স্টেশন ও জাসিদিহ স্টেশনে দাঁড়াবে। তবে, পুজোর আগেই এই ট্রেন চালু হলে আমজনতার যে কপাল খুলবে তা বলাই বাহুল্য।