টাইমলাইনখেলাক্রিকেট

পায়ে হেঁটে আয়ারল্যান্ড, পার করেছিলেন ৮টি দেশ! শুয়েছিলেন পার্কেও! কাঁদিয়ে দেবে বিশ্বের শীর্ষ বোলারের কাহিনী

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্ক: অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে আয়ারল্যান্ডের অফ স্পিনার মুজামিল শেরজাদের যাত্রা আর পাঁচজন ক্রিকেটারের মতো সরল-স্বাভাবিক নয়। আফগানিস্তানের জালালাবাদের রাস্তায় টেপ বল দিয়ে ক্রিকেট খেলা মুজামিল এখন ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম সেরা জুনিয়র ক্রিকেটার। তার সংগ্রামী যাত্রায় অনায়াসে বড় পর্দায় তুলে ধরা যায়।

পাঁচ বছর আগে, শেরজাদের বয়স যখন ১৪, আফগানিস্তানে তার মা তাকে আয়ারল্যান্ডে নিয়ে যাওয়ার জন্য একজন এজেন্টকে কিছু টাকা দিয়েছিলেন। কারণ সেই দেশে তার কাকা একটি ফাস্টফুড আউটলেটে কাজ করেন। শেরজাদ যখন জালালাবাদ ছেড়ে চলে যান, তখন তার কাছে কিছু বাড়িতে রান্না করা খাবার এবং মাত্র ৩৪০০ টাকা ছিল।

এর পরে, পরবর্তী ৮-৯ মাস ধরে, শেরজাদ অন্যান্য অভিবাসীদের সাথে পাকিস্তান, ইরান, তুরস্ক, বুলগেরিয়া, সার্বিয়া, ক্রোয়েশিয়া, ইতালি এবং ফ্রান্সের সীমান্ত অতিক্রম করে। এ সময় তাকে কখনও হাঁটতে হয়েছে, কখনও বা দৌড়াতে হয়েছে, জঙ্গলে লুকিয়ে থাকতে হয়েছে, পার্কে ঘুমাতে হয়েছে। শেরজাদ তার কাকার কাছ থেকে একটি উন্নত জীবনের সন্ধানে প্রায় ৮৩০০ কিলোমিটার ভ্রমণ করেছিলেন। আয়ারল্যান্ডে পৌঁছানোর পর, শেরজাদ বুঝতে পেরেছিলেন যে ক্রিকেট খেলে তিনি নিজের পরিচয় এবং বন্ধু তৈরি করার সুযোগ পাবেন। ভাগ্য তার সহায় হয়েছিল এবং আজ তিনি আয়ারল্যান্ডের তারকা খেলোয়াড় হয়েছেন।

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে শেরজাদ বলেন, “আমি ৫ বছর বয়সে আমার বাবাকে হারিয়েছি। পারিবারিক সম্পত্তির বিরোধের পর, আমার মা একজন এজেন্টের সংস্পর্শে আসেন এবং আমাকে বাড়ির বাইরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু সেই লক্ষ্যে পৌঁছতে আমার জীবনও বিপন্ন হয়ে পড়েছিল।”

Related Articles

Back to top button