আন্তর্জাতিকটাইমলাইন

দূষণ কমাতেযুগান্তকারী আবিষ্কার, বিশ্বের প্রথম পিস্টন ইঞ্জিন তৈরি করে চমকে দিল ইজরায়েলি ইঞ্জিনিয়াররা

বাংলা হান্ট ডেস্ক : বিশ্বে যেভাবে লাগাতার হারে দূষণ বেড়ে চলেছে তাঁর নিয়ন্ত্রণ করতে পরিবেশ বিজ্ঞানীরা নিরন্তর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন৷ ইতিমধ্যে বায়ু দূষণ এবং শব্দ দূষণ কমানোর জন্য বৈদ্যুতিক গাড়ি রাস্তায় বের করা হয়েছে৷ ভারতসহ বিশ্বের অন্যান্য শক্তিধর দেশগুলি ইতিমধ্যেই বৈদ্যুতিক কার ব্যবহার করা শুরু করেছে৷ কিন্তু এরই মধ্যে দূষণ কমাতে এক যুগান্তকারী আবিষ্কার করলেন ইজরায়েলের ইঞ্জিনিয়াররা৷ তাই তো জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে কয়েক কদম এগিয়ে গিয়ে এক অভিনব পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন৷ তাই তো দূষণ কম করার জন্য এক আকর্ষণীয় প্রোটোটাইপ ইঞ্জিন তৈরি করেছেন ইজরায়েলের ইঞ্জিনিয়াররা

যেটি একদিকে যেমন জ্বালানি দক্ষতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে তেমনি দূষণ কমানোর জন্য ইথানলের পাশাপাশি জ্বরের উপর দিয়ে যেতে সক্ষম৷ সেই ইজরায়েলে প্রস্তুতকারক সংস্থার নাম হল মায়ান রিসার্চ এলসিসি৷ যে প্রেস্টন ইঞ্জিনটি তৈরি করেছে তাঁরা সেটি 30 শতাংশ ইথানল বা অন্য কোনও ধরনের অ্যালকোহল সংমিশ্রণের মধ্য দিয়ে যেতে পারে এবং ডিজেল বা পেট্রোলের প্রয়োজনীয়তা হ্রাস করতে পারে৷ এই সংস্থাটি চারটি প্রোটোটাইপ তৈরি করেছে যেখানে একটি পাওয়ার জেনারেটার, বিভিন্ন ধরনের ইঞ্জিন রয়েছে ৷ যেগুলি কার্যত সালফার ডাই অক্সাইড এবং নাইট্রোজেন অক্সাইড নির্গমন দূর করে৷

অন্যদিকে বিকল্প জ্বালানির অন্যতম প্রধান চ্যালেঞ্জ ডিভাইস৷ যেটির জ্বালানি খরচ অন্যান্য মাধ্যমের তুলনায় অনেকটাই বেশি হলেও জীবাশ্ম জ্বালানি সহ যে কোনও শক্তি থেকে কম খরচ হতে পারে৷ টানা ছয় বছর ধরে গবেষণার পর তাঁরা সাফল্য পেয়েছেন এমনটাই জানিয়েছেন প্রস্তুতকারক সংস্থারএক সদস্য৷ তবে যাই হোক এই নতুন ইঞ্জিন প্রযুক্তি ব্যবস্থায় এক নতুন বিপ্লব আনতে বেড়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে, যদিও দেশের সমস্ত যানবাহন গুলিতে নিযুক্ত করতে বেশ কিছু বছর সময় লাগবে, কিন্তু সম্পূর্ণ ভাবে দূষণ নিয়ন্ত্রণ করা যাবে এমনটাই আশাবাদী ওই সংস্থার ইঞ্জিনিয়াররা৷

Back to top button