পুরীর মন্দিরে প্রবেশের নিয়মে পরিবর্তন! এবার এত টাকার টিকিট কেটে করতে হবে জগন্নাথ দর্শন

বাংলাহান্ট ডেস্ক : আর কিছুদিন পর দুর্গাপুজো। এই সময়টাতে অনেক বাঙালি পুরী (Puri) ঘুরতে যান। আপনারও যদি আগামী দিনে পুরী ঘুরতে যাওয়ার প্ল্যান থাকে, তাহলে এই প্রতিবেদনটি মন দিয়ে পড়ুন। আগামী দিনে বেশ কিছু নিয়মে পরিবর্তন আসতে চলেছে পুরীর মন্দিরে। এবার থেক পুরীর মন্দিরে টিকিট কেটে করতে হবে জগন্নাথ দর্শন।

তবে শ্রী জগন্নাথ ট্রাস্ট অ্যাসোসিয়েশন জানাচ্ছে, বিনামূল্যে মন্দির দর্শন করতে পারবেন ভক্তরা। সেই নিয়মে পরিবর্তন আসছে না। এই পরিমাণিক দর্শন চালু করা হবে প্রতিদিন কয়েক ঘণ্টার জন্য। অর্থাৎ, ভক্তরা টিকিট কাটার পরই ঢুকতে পারবেন মন্দিরের ভিতরে। খুব শীঘ্রই এই টিকিটের দাম নির্ধারণ করবে কর্তৃপক্ষ।

   

আরোও পড়ুন : এবার বাংলায় ঢুকছে পদ্মার ইলিশ, আনন্দে আত্মহারা মাছপ্রেমীরা! কত হবে দাম?

শ্রী জগন্নাথ ট্রাস্ট অ্যাসোসিয়েশনের মুখ্য প্রশাসক রঞ্জন কুমার দাস জানিয়েছেন, “আমরা যোগাযোগ করব সব নিযোগদের সাথে। সেবায়েতদের সংগঠন হল নিযোগ। আমরা সেবায়েতদের সাথে পরামর্শ করেই নির্ধারণ করব পরিমাণিক দর্শনের টিকিট মূল্য কত রাখা হবে।” প্রায় সাত বছর আগে পরিমাণিক দর্শনের টিকিট মূল্য শ্রী জগন্নাথ ট্রাস্ট অ্যাসোসিয়েশন ৫০ টাকা ধার্য্য করে।

গর্ভ গৃহে প্রবেশ করতে চাইলে ভক্তদের ৫০ টাকার টিকিট কাটতে হত। এই নির্ধারিত টিকিট মূল্য দিনের নির্দিষ্ট সময়ের জন্য চালু থাকত। পুরীর জগন্নাথ মন্দির সংস্কারের কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালে। সেই সময় হঠাৎ করেই বন্ধ করে দেওয়া হয় পরিমাণিক মূল্য। বর্তমানে ভক্তরা মন্দিরের জগন্নাথ-বলরাম ও সুভদ্রাকে দর্শন করেন গর্ভগৃহের বাহারা এবং ভিতর কথা অংশ থেকেই।

আরোও পড়ুন : জঞ্জাল বেচে আয় ৬০০ কোটি! বাতিল কাগজপত্র দিয়েই চন্দ্রযান ৩’র খরচ তুলল সরকার

পারিমাণিক দর্শন ব্যবস্থা চালু হলে ভক্তদের গর্ভ গৃহে ঢুকতে দেওয়া হবে কিনা সেই ব্যাপারেও শীঘ্রই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। শ্রী জগন্নাথ ট্রাস্ট অ্যাসোসিয়েশনের মুখ্য প্রশাসক এই ব্যাপারে বলেছেন,”আমাদের মনে হয় যদি দলে দলে ভক্তরা গর্ভ গৃহ প্রবেশ করেন তাহলে বিঘ্ন ঘটতে পারে পুজোর কাজে। সেই ব্যাপারটি আমরা আলোচনা করে দেখব।”

Puri Temple

সেবায়েত যোগেন্দ্র মহাপাত্রর কথায়, “জগন্নাথ দর্শনের জন্য এখন ভক্তদের ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয়। এক মিনিটের বেশি কেউ দর্শন করতে পারেন না। টিকিট কেটে ভেতরে ঢুকতে পারলে আরো ভালোভাবে দর্শন করা সম্ভব হবে। স্পেশাল ব্যবস্থা করা হবে ভিয়াইপি এন্ট্রির জন্য। এর ফলে মন্দির কর্তৃপক্ষেরও আয় বাড়বে।”

Avatar
Soumita

আমি সৌমিতা। বিগত ৩ বছর ধরে কর্মরত ডিজিটাল সংবাদমাধ্যমে। রাজনীতি থেকে শুরু করে ভ্রমণ, ভাইরাল তথ্য থেকে শুরু করে বিনোদন, পাঠকের কাছে নির্ভুল খবর পৌঁছে দেওয়াই আমার একমাত্র লক্ষ্য।

সম্পর্কিত খবর