টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

কেচ্ছা ফাঁস! কত টাকা দিয়ে প্রথম পুরস্কারের সেই টিকিট কেনেন অনুব্রত, CBI-কে জানালেন লটারি বিক্রেতা

বাংলাহান্ট ডেস্ক : সিবিআইয়ের একটি টিম বৃহস্পতিবার বোলপুরের কাছে নানুরে পৌঁছায় অনুব্রত মণ্ডলের এক কোটি টাকা লটারির উৎস সন্ধান করতে। সিবিআই অফিসারেরা এক কোটি টাকার লটারির প্রধান মালিক নূর আলির বাড়ি গিয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এরপর নূর আলির বাবা কটাই শেখ বিস্ফোরক দাবি করেন সংবাদমাধ্যমের সামনে। তিনি বলেন, লটারিতে ওই এক কোটি টাকা জেতার পর তৃণমূলের লোকেরা তাকে হুমকি দিয়ে লটারি টিকিট কিনে নিয়ে যায় নামমাত্র টাকায়।

একই সময় লটারি কাণ্ড নিয়ে মুখ খুললেন লটারি এজেন্সির মালিক বাপি গাঙ্গুলী। বাপিবাবু বলেছেন, “অনুব্রত মণ্ডল কাউন্সিলর বিশ্বজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়ের মাধ্যমে ৮৩ লক্ষ টাকার বিনিময় নূর আলির থেকে লটারির টিকিটটা কেনেন। তিনি শুধুমাত্র টিকিট যাচাই করেছিলেন। এছাড়া কোনও ভূমিকা এতে তার নেই।

বাপি গাঙ্গুলী বলেন, “কালাম শেখ আসলে লটারির টিকিট জিতেছিলেন। নূর আলি তার থেকেই টিকিটটা পান। কিভাবে এই টাকা তিনি খরচ করেছেন তা জানতে এখন তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এটা পরিষ্কার যে এরপরে অনুব্রত মণ্ডল নূর আলির কাছ থেকে টিকিট কেনেন। এই তথ্যও সামনে এসেছে যে তিনি ৮৩ লক্ষ টাকার বিনিময় টিকিটটি কিনেছিলেন। আমার নাম এর মাঝে জড়িয়ে পড়েছে। বিশ্বজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায় শুধু আমাকে টিকিটটা চেক করে দিতে বলেছিলেন। আমি চেক করে দেওয়ার পরে ওরা টাকা পেয়ে যায়।”

লটারির মাধ্যমে অনুব্রত মণ্ডল কি তবে কালো টাকা সাদা করেছেন? এই বিষয়ে বাপিবাবু বলেন, “অনুব্রত মণ্ডল আর তদন্তকারীরা জানেন যে টাকাটা সাদা না কালো। ৮৩ লক্ষ টাকা দিয়ে অনুব্রত মণ্ডল টিকিটটা কিনেছিলেন এবং পরে ক্লেম করেছিলেন। এরপর লটারির টাকাটাও পেয়েছিলেন তিনি। আমি এর মধ্যে নেই। আমি শুধুমাত্র লটারি ব্যবসায়ী। এই বিষয়ে কিছু জানিনা। ৮৩ লক্ষ টাকা ক্যাশের লোভে পড়ে পার্টি টাকা নিয়েছিল। এতে আমার কোন ভূমিকা নেই।”

Anubrata nur

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ৭ ডিসেম্বর লটারি টিকিটে এক কোটি টাকা জেতেন অনুব্রত মণ্ডল। এরপর গরু পাচার মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার পর সামনে উঠে আসে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তদন্তকারীরা মনে করেন যে লটারির মাধ্যমে অনুব্রত মণ্ডল কালো টাকা সাদা করেছেন। কিছুদিন হল এই বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নেমেছে সিবিআই।

Related Articles