জ্যোতিপ্ৰিয়কে নিয়ে বিরাট সিদ্ধান্ত নিল SSKM, এবার কি সামনে আসবে সত্যি? শোরগোল তুঙ্গে

বাংলা হান্ট ডেস্ক: গত অক্টোবর মাসে টানা ২১ ঘণ্টা ম্যারাথন জিজ্ঞাসাবাদের পর রেশন দুর্নীতি (Ration Corruption) মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে রাজ্যের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে (Jyotipriya Mallick)। তারপর থেকে জেলে কম আর সরকারি হাসপাতালে বেশি দিন কেটেছে জ্যোতিপ্ৰিয়র। বর্তমানেও তার ঠিকানা এস‌এসকেএম (SSKM) হাসপাতাল। হাসপাতাল সূত্রে খবর, বেজায় অসুস্থ জ্যোতিপ্ৰিয়। বার বার ঘুরে যাচ্ছে মাথা। কেন এরমটা হচ্ছে তা জানার জন্য ‘হেড আপ টিলট টেবল টেস্ট’ পরীক্ষার পরামর্শ দিয়েছে বালুর চিকিৎসায় গঠিত মেডিক্যাল বোর্ড।

   

সূত্রের খবর, এই পরীক্ষা এস‌এসকেএম সহ রাজ্যের কোন‌ও সরকারি হাসপাতালে করার সুযোগ নেই। আর সেই কারণে এবার বেসরকারি হাসপাতালের মুখাপেক্ষী এস‌এসকেএম কর্তৃপক্ষ। এই পরীক্ষার জন্য শহরের তিন বেসরকারি হাসপাতালের মুখাপেক্ষী এস‌এসকেএম।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই একই হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন নিয়োগ দুর্নীতির সুজয়কৃষ্ণ। তিনিও এস‌এসকেএমে কার্ডিওলজি বিভাগে চিকিৎসাধীন। পূর্বে নিয়োগ দুর্নীতিতে ধৃত সুজয় কৃষ্ণ ভদ্র ওরফে কালীঘাটের কাকুর হৃদযন্ত্রের মাংসপেশীর সক্ষমতা যাচাইয়ে ‘স্ট্রেস মায়োকার্ডিয়াল পারফিউসন স্ক্যান’ পরীক্ষার পরামর্শ দিয়েছে এস‌এসকেএমের। সেই পরীক্ষা করানোর জন্যও বেসরকারি হাসপাতালে যেতে হয়।

আরও পড়ুন: ২৪ ঘন্টার মধ্যেই পাল্টি! বড়দিনের আগেই উধাও ঠান্ডা, ভয়ঙ্কর আপডেট দিল আবহাওয়া দপ্তর

জানা যাচ্ছে প্রায় এক ঘণ্টা পাঁচ মিনিট সময় লাগে এই পরীক্ষা করতে। এই পরীক্ষা করার ক্ষেত্রে রোগীর মাথা সোজা রেখে তাকে বিভিন্ন অ্যাঙ্গলে দাঁড় করিয়ে, শুইয়ে টেস্ট হয়। বিভিন্ন দিক মাথায় রেখে নানান নিয়ম মেনে এই পরীক্ষা করাতে হয়। রোগীর হার্টবিট রেট, ব্লাড প্রেসার ইত্যাদি আরও নানান বিষয়ে পরীক্ষা করা হয়।

balu

প্রসঙ্গত, জ্যোতিপ্ৰিয়কে গ্রেফতারির পরদিন কোর্টে পেশ করতেই আদালতে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন জ্যোতিপ্রিয়। বমিও (Vomit) করেন তিনি। শুধু তাই নয়, ইডি হেফাজতের নির্দেশ শুনে মাথা ঘুরে পড়ে যান জ্যোতিপ্রিয়। জ্ঞান হারান। এরপর এসএসকেএম এ থাকাকালীনও মন্ত্রীর মাথা ঘোরার সমস্যা না কমায় এবার মন্ত্রীর ‘হেড আপ টিলট টেবল টেস্ট’ করাতে চাইছে এসএসকেএম কর্তৃপক্ষ।

Sharmi Dhar
Sharmi Dhar

শর্মি ধর, বাংলা হান্ট এর রাজনৈতিক কনটেন্ট রাইটার। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৩ বছর ধরে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত ।

সম্পর্কিত খবর