টাইমলাইনআন্তর্জাতিক

আচমকাই অন্ধকারাচ্ছন্ন গোটা পাকিস্তান! আতঙ্কে ভুগছে দেশবাসী! ভারতের হাত আছে বলল পাক মন্ত্রী

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণে গোটা পাকিস্তানে শনিবার রাতে আচমকা একসাথে বিদ্যুৎ চলে যায়। আর এর কারণে করাচি, ইসলামাবাদ, লাহোর, পেশাওয়ার আর রাওয়ালপিণ্ডি সমেত সমস্ত শহর গুলো অন্ধকারে দুবে যায়। গোটা দেশে আচমকাই হওয়া ব্ল্যাকআউটে সোশ্যাল মিডিয়ায় নানান গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

পাকিস্তানি মিডিয়া জানায়, অনেক শহরই পুরোপুরি অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। ইসলামাবাদের ডেপুটি কমিশনার হমজা শাফকত বলেন, ন্যাশানাল ট্রান্সমিশন সিস্টেম ফ্রিকুয়েন্সি আচমকা ৫০ থেকে শূন্যে নেমে যায় আর এর কারণে গোটা দেশে ব্ল্যাকআউট হয়ে যায়। আরেকদিকে, পাকিস্তানের বিদ্যুৎ মন্ত্রী উমর আয়ুব মানুষের কাছে ধৈর্য বজায় রাখার আবেদন করেন। পাকিস্তানের বিদ্যুৎ মন্ত্রালয় একটি ট্যুইট করে জানায় যে, ন্যাশানাল ট্রান্সমিশন সিস্টেম ফ্রিকুয়েন্সি আচমকা ৫০ থেকে শূন্যে নেমে যাওয়ার কারণে গোটা দেশে ব্ল্যাকআউট হয়েছে।

 

গোটা পাকিস্তান অন্ধকারাচ্ছন্ন হওয়ার পর ইমরান সরকারের প্রলাপ করা মন্ত্রী শেখ রশিদ ভারতের ষড়যন্ত্র খুঁজে পান। উনি পাকিস্তানের বিদ্যুৎ চলে যাওয়া নিয়ে ভারতকে দুষতে শুরু করেন। উনি বলেন, ভারত ইচ্ছে করে পাকিস্তানের বিদ্যুৎ বন্ধ করে দিয়েছে। তাঁরা দেশে চলা কৃষক আন্দোলন থেকে নজর ঘোরাতে এই কাজ করেছে।

পাকিস্তানের বিদ্যুৎ মন্ত্রালয় একটি ছবি ট্যুইট করে জানায় যে, বিদ্যুৎ মন্ত্রী উমর আবদুল্লাহ নিজেই বিদ্যুৎ ফিরিয়ে আনার কাজ দেখছেন। পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রীর সহায়ক শাবাজ গিল বলেন, বিদ্যুৎ মন্ত্রী উমর আয়ুব আর ওনার গোটা টিম এই ব্রেকডাউনে কাজ করছেন। উনি বলেন, দেশের নাগরিকদের এই নিয়ে খুব শীঘ্রই আপডেট দেওয়া হবে।

তথ্যমন্ত্রী শিবলি ফরাজ এই ঘটনাকে NTDC এর সিস্টেমের গড়বর বলে লেখেন, বিদ্যুৎ ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া জারি আছে। এর আগে ২০১৫ এর জানুয়ারি মাসে পাকিস্তানে প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণে অনেক ঘণ্টা বিদ্যুৎ ছিল না। করাচি, লাহোর, ইসলামাবাদ, কসুর আর অন্য শহরের বাসিন্দারা ব্ল্যাকআউট নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নানান গুজব ছড়ায়। ভারতেও #blackout ট্রেন্ড করছে।

Back to top button